[Love story] অভিযোগ । লিখা মোঃ রাফি। পার্ট- ৬

[Love story] অভিযোগ ।  লিখা মোঃ রাফি। পার্ট- ৬

তারপর কি ভাবে যেন আব্বু এক সপ্তাহের মাঝে আমার জাবিন করে নিলো। তবে এই এক সপ্তাহ জানোয়ারের মত আমায় নির্যাতন করেছিল পুলিশ। জেল থেকে বের করে আব্বু আমায় সে দিন চড় মেরে বলছিল, "একটা মেয়ের জন্য আমার মান সম্মান সব শেষ করে দিলি।" আমি কিছু না বলে চুপ করে ছিলাম। তারপর বাড়ি ফিরে আম্মু আমায় দেখে বললো, "তোকে বারণ করেছিলাম না যেতে? এত ভালোবাসা দেখালি! কই তোর ভালোবাসার মানুষ?"
সে দিন নুসরাতের যত ছবি ছিল সব ছিঁড়েছিলাম। ভেবেছিলাম যেখানে বাবা মা কে সম্মানের জায়গায় অসম্মানে ঠেলে দিয়েছি। এই মুখ আর দেখাবো না। সে দিন আমি তিনবার আত্নহত্যা করতে গিয়ে ও পারি নি। প্রতিবার নুসরাতের সেই হাসি মুখটা সামনে ভেসে আসতো। তারপরের দিন গুলো কেটেছিল জেলের থেকে ও খারাপ। মানুষ আমায় আর আমার পরিবারকে নানান কথা বলতো। আব্বু রাতে এসে কান্না করতো। আর কোন কোন দিন আমায় খুব মারতো।

[Love story] অভিযোগ ।  লিখা মোঃ রাফি। পার্ট- ৬
[Love story] অভিযোগ ।  লিখা মোঃ রাফি। পার্ট- ৬



 আম্মু অসুস্থ হয়ে পরে তাই মেঘলাকে ( আমার খালাতো বোন) আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসে। কলেজে তো যাওয়া বন্ধ যে দিন নুসরাতের বাড়িতে গিয়েছিলাম সে দিন থেকেই। আব্বু আমায় কলেজে নিয়ে গেলে প্রিন্সিপাল স্যার অপমান করে বের করে দেয়। তার উপর টেষ্ট এক্সাম সব ফেল। সভাপতির সাথে আব্বুর ভালো সম্পর্ক ছিল। অনেক বুঝিয়ে আমার এক্সাম দেওয়ার সুযোগ করে দেয়। কিন্ত আমি ফেইল করি বসি। তখন পর্যন্ত নেশা আমি গোপনে করতাম। যে দিন রেজাল্ট দিয়েছিল সে দিন আব্বু এত মেরে ছিল বলতে পারব না। তারপর দরজার বাহিরে আমায় বের করে দেয় সে দিন মধ্য রাতের দিকে আমার মাথায় নেশার ভূত চাপে। আমি কি করব বুঝতে পারি নাই তাই আমি দরজা ভেঙ্গে আব্বুর টাকা চুরি করি। আর সে দিন নেশায় মাতাল হয়ে রাস্তায় পরে থাকি। এলাকার লোক বাবাকে বিভিন্ন রকম বাজে কথা বলে। আর সে দিন থেকে শুরু হয় বাবা মায়ের অত্যাচার। যদি খুন করলে জেল না হত তারা হয়তো আমাকে অনেক আগেই মেরে ফেলতো। অন্তত নিজেদের সম্মানের জন্য হলে ও।
_এত অত্যাচারের মধ্যে ছিলা কি ভাবে তুমি?( সোহানা কাঁদতে কাঁদতে বললো)
_ জানি না তখনকার দিন গুলো নেশায় কাটতো। তাই বলতে পারি নি। আর তারপর একদিন আমি বাহিরে থেকে এসে দেখি নুসরাতের দেওয়া আমার ঘড়িটা নাই। আমি পাগলের মত খুঁজতে থাকি। ওর শেষ স্মৃতিটা আমি হারাতে চাইনি। আমি মেঘলাকে জিজ্ঞাসা করলাম, মেঘলা আমার ঘড়িটা দেখেছিস? ও হাসতে হাসতে বললো, আমি ঘড়িটা হাতে নিয়ে দেখার সময় ভেঙ্গে----। আর কিছু বলার আগে ঠাস ঠাস করে ওর গালে পচন্ড জোরে দুইটা থাপ্পড় বসিয়ে দেই ওর গালে। ও আমার ঘড়ি আমার উপর ছুড়ে মেরে দৌঁড়ে চলে যায়। তখন নিজে অনুতপ্ত হই। এর পর ওর কাছে ক্ষমা চাই। কিন্ত ও আর আমার সাথে কোন ভাবেই তেমন কথা বলেনি। যখন এ কথা বলতে গিয়েছি তখনই নেশাখোর বলে বা বিভিন্ন ভাবে আমায় আপমান করতো। মাঝে মাঝে কোন দোষ ছাড়াই ও আম্মু আব্বুর কাছে বিচার দিতো। শেষবার যখন বললো, "ও ড্রেস চেঞ্জ করার সময় আমি উকি দিয়েছি"। আব্বু আম্মুর সামনে অনেক মেরেছে। মেঘলা আমার অবস্থা দেখে হাসছিল। তারপর না খেয়ে কত দিন ছিলাম ঠিক জানি না। তারপর বাড়ি ছেড়ে চলে আসি। আর তোমার আম্মু হয় আমার আশ্রয়ের স্থান ।
সোহানা অতীত শোনার পর আর কিছু না বলে আমায় জাপটে ধরে।
_রাফি তোমার জীবনে এত ঝড় বয়ে গেছে তা কখনো আমি ভাবতে ও পারি নাই। ( কাঁদতে কাঁদতে )
_বাদ দাও তো এসব।
_ রাফি সামনে আমাদের ফাইনাল এক্সাম। লক্ষ্য হল তুমি ভালো রেজাল্ট করবে। তারপর প্রধান লক্ষ ঢাকা মেডিকেল কলেজে এডমিশন। আমি চাই তুমি ওই সব মানুষদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দাও যে তুমি একটা মানুষ। আর তুমিও পারো কিছু করতে।
দেখতে দেখতে ইন্টারের ফাইনাল এক্সাম চলে আসলো। সোহানা আগের থেকে অনেক বেশি মিশে বলা যায়। আমার প্রতিটি কাজ ওর পছন্দ মত করায়। এতে আন্টি তেমন কিছু বলে না। এক্সাম গুলো খুব ভালো গিয়েছিল। এক্সামের পর আমি সোহানা বিভিন্ন জায়গায় ঘুড়াঘুড়ি করতাম। সবাই আমাদের সম্পর্কটা বয়ফ্রেন্ড গার্লফ্রেন্ড ভাবলে ও আমরা ছিলাম বন্ধু। সোহানাকে পেয়ে আমি নুসরাতকে ভুলে গিয়েছি বলা যায়। আমার বদলে যাওয়াটা একটা রূপকথার গল্পের মতো হয়তো। কিন্তু নিয়তি তো আমি ঠেকাতে পারবো না।
একদিন সোহানা আর আমি ফান করতেছি। হঠাৎ সোহানা বসে পরে। তারপর ও জ্ঞান হারায়। আমি আর আন্টি ওকে নিয়ে হসপিটাল গেলাম। কিন্তু ডাক্তারের রিপোর্ট শুনে আমি ধপ করে মাটিতে বসে পরলাম ।
চলবে।
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ ,
About Author
1 comment
Sort by