ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ১৭

#ক্ষেত_যখন_বড়লোকের_ছেলে
#পর্ব_১৭
#লেখকঃFahim_Sheikh
ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ১৭
ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ১৭

তখন আমি ব্যাংকের ম্যানেজার এর রুমে প্রবেশ করলাম।।তারপর।আমি বললাম - যে ওমর ফারুক ফাহিম এই নামে এই ব্যাংকে কোনো ব্যাক্তির একাউন্ট আছে।।।

ম্যানেজার-স্যার ডিসট্রিক বললে ভালো হতো 😔😔😔

আমি- মে বি ঢাকা।।

ম্যানেজার-অপেক্ষা করুন স্যার আমি দেখছি।।।

কিছুক্ষণ পর,,

ম্যানেজার- জ্বী স্যার একটা প্রাইভেট একাউন্ট আছে।।।

আমি- আমাকে সেই একাউন্ট এর ডিটেইল দিতে পারবেন।।

ম্যানেজার-সরি স্যার।। ওনার সিংনেচার ছাড়া এটা করা যাবে না।।কারণ এটা একটা প্রাইভেট একাউন্ট।। একমাত্র একাউন্ট মালিকের সিংনেচার দিয়ে একাউন্ট ওপেন বা ডিটেইল নেওয়া যাবে।।আপনি এলাকার সমাজ সেবি বলে আমি আপনাকে এতোটুকু ইনফরমেশন দিয়েছি।।।ওনারসিংনেচার ছাড়া বাকী ইনফরমেশন দেওয়া যাবে না।।।কারণ এটা ফাহিম গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিস এর এমডির একাউন্ট।।

তখন এই নামটা শুনে আমার আবার কিছু মনে পড়তে চাচ্ছে।কোনো।এক সিংনেচার।।।
তখন ম্যানেজারকে বললাম- দেন কোথায় সই করতে হবে।।🤔🤔

ম্যানেজার- স্যার আপনার সিংনেচার হলে হবে না।।

আমি- আপনি দেন আমি সই দিচ্ছি।।।

তারপর ম্যানেজার একটা ট্যাব এগিয়ে দিল।। আমি চোখ বন্ধ করে তাতে সই করে দিলাম কিন্তু কি সিংনেচার করলাম তা জানি না।।।

তারপর ম্যানেজার এর রুমের মনিটরে একাউন্ট এর সব ডিটেইল চলে আসল।।।আমার ছবি সহ।কিন্তু আমার ছবি কিভাবেএই একাউন্ট এর প্রোফাইলে এলো।।আর টাকার এমাউন্ট দেখে আমি অবাক হয়ে গেলাম।।।না হলেও ৫০০ কোটি টাকা আছে।।

তখন ম্যানেজার বলল-স্যার তাহলে আপনিই ফাহিম গ্রুপের এমডি।। আপনাকে আপনার পরিবার আপনাকে অনেক খুজেছে।।।কিন্তু পায় নি।।।

আমি- আচ্ছা আমার এটিএম কার্ডের পিন কত🤔🤔

ম্যানেজার -কেনো স্যার আপনি জানেন না।।।

আমি- আসলে এক্সিডেন্ট এ আমার স্মৃতি চলে গেছে কিছুই মনে নেই।।যারা আমাকে উদ্ধার করেছিল তারা আমার ওয়ালেট আর ফোনটা আমাকে দেয়।।ওয়ালেট এ দেখি ওনেকগুলা ক্রেডিট কার্ড কিন্তু আমার একটা কার্ডেরও পিন মনে নাই।।।তাই জানতে চাচ্ছি।।।

অর্জিনাল লেখকের গল্প পড়তে #অসমাপ্ত_কাব্য_লেখক পেজে লাইক করুন।।বা ফলো করুন😘😘

ম্যানেজার- আচ্ছা এইজন্যই আপনি এখনও জানেন না যে আপনার বাবা-মা,বউ আছে।।আর আপনি।এতো বড় কম্পানির মালিক।।আপনার কার্ডটা দিন আমি পিন বের করে দিচ্ছি।।

আমি- আচ্ছা আমাকে কি এই একাউন্ট এর ফরমের কপি দেওয়া যাবে।।।

ম্যানেজার- স্যার আপনার পিন হচ্ছে ****।।আর এই নিন কপি।।
তারপর ম্যানেজার এর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বাহিরে এসে দেখি দুলাভাই আমাকে খুজতেছেন।।
আমি ওনার সামনে যাওয়ার পরেই ওনি বললেন- ফাহিম কোথায় চলে গিয়েছিলে।🤔🤔তোমাকে না পেয়ে কত চিন্তায় পরে গেছিলাম।।স্মৃতিকে কল করে জানতে চাইলাম যে বাসায় গেছ নি।। স্মৃতি বলল -যাও নি।।
আমি দুলাভাইকে বললাম-রিলেক্স হন।। আগে বাসায় চলেন সব বলব।।
তারপর বাসায় চলে গেলাম।।তারপর ব্যাংকে যা যা ঘটল সব বললাম তাদের।। বলা শেষ করতেই আমার ফোনে কল এলো।।(আমি আগের ফোন চালাই না নতুন কিনা দিছে স্মৃতি আপু।।কারণ ওই ফোন ইউস করলে মাথা প্রচণ্ড ব্যাথা করে আর কিছু মনে পড়তে চায় কিন্তু করতে পারি না)

ফোন হাতে নিয়ে দেখি মেহেদী ভাইয়ের কল।।রিসিভ করতেই ভাই আর্জেন্ট ডাকল।।।তাই আপুকে বলে তাড়াতাড়ি চলে গেলাম।।সেখানে গিয়ে জানতে পারি যে ঢাকা মিরপুর থানায়।নাকি আমাদের পুরো গ্রুপকে আটক করেছে এক মাস্তানের কথায়।।।আর পুলিশের কর্মকর্তারও নাকি মাস্তানের সাথে হাত আছে।।।

তাই আমাদের গ্রুপকে সেখানে যেতে হবে।।তাই বাসায় কল করে আপুকে বললাম যে কিছু কাজে আমাকে আজকেই ঢাকা যেতে হবে।। দুই তিন দিনের মধ্যে চলে আসব।।তারপর রওনা দিলাম ঢাকার উদ্দেশ্যে।। রাতে রওনা দিলাম আর সকালে পৌছালাম।। পরে থানায় গেলাম থানায় ডুকার সময়
সকল হাবিলদার আমাকে সালাম দিচ্ছে।।।কিন্তু কেনো দিচ্ছে জানি না।।
থানায় ডুকে আমি অফিসারকে বললাম যে, যারা লকাবে আছে তাদের দোষ কি।।🤔🤔কি কারনে তাদের এরেস্ট করা হয়েছে।।

অফিসার- তুই কে যে তকে সব কৈফত দিতে হবে।। 🤔🤔

আমি- ওরা আমার লোক তাই আমি জানিতেই পারি যে কি অপরাধে আমার লোকদের আপনি লকাবে ডুকরিয়েছেন। 🤔🤔

অফিসার- অপরাধ করে আবার আমার মুখে মুখে কথা বলতেছিস।।।দাড়া মজা দেখাচ্ছি।। হাবিলদার এদের কেও লকাবে ডুকান।।তখন হাবিলদার অফিসারের কান কানে কি যেন বলল।।তখন অফিসার আরও জোরে চিৎকার করে বলল তো কি হয়েছে।। লকাবে ডুকাতে বলছি ডুকান।।

হাবিলদার আমাদেরও লকাবে ডুকাল।।।লকাবে ডুকানের কিছুক্ষণ পরেই শুনি অনেক গাড়ির আওয়াজ থানার বাইরে।।
পরে থানার ভিতর চিৎকার, চেঁচামেচি শুনিতে পাই।।
পরে হাবিলদার আমাদের সবাইকে বের করে আনে।।
বের করে আনার পর দেখি একটা ৪,৫ বছরের মেয়ে আমাকে এসে ধরে বলতাছে মামা মামা আমাকে কোলে নাও।।।
আমি পিচ্চিটাকে কোলে নিলাম।।তখন আবার বলা শুরু করল- মামা তুমি এতোদিন কোথায় ছিলে।। আমি তোমাকে অনেক।মিস করেছি।।জানো মামা মামি প্রতিদিন তোমার জন্য কান্না করে।।ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া করে না।।
নানু তো প্রায় পাগল হয়ে গেছে।।।
আমি পিচ্ছিটাকে বললাম- বাবু তোমার নাম কি।।আর আমাকে মামা বলতেছ কেন🤔🤔🤔

মামা- তুমি আমাকে বাবু বলতাছ কেন??আর আমার নাম কি তুমি ভুলে গেছ।।

তখন পিচ্ছিটা কাকে যেন নানা বলে ডাক দিল।।।পিচ্চিটার ডাক শুনে একজন ৪০ বছর বয়স্ক লোক ভিতরে প্রবেশ করলে।।আর আমাকে জরিয়ে ধরে কান্না শুরু করে দিলেন।।
আর বলতে লাগলেন বাবা তুই এতোদিন কোথায় ছিলি।।।জানিস তকে কত খুঁজেছি।।।। ম্যানেজার বলল তুই ৪দিনের জন্য ইতালি গিয়েছিস।।। কিন্তু ৫ দুন হয়ে গেল তুই ফিরলি না।।তখন ইতালি কল করে জানতে পারি তুই নাকি সেখানের কাজ শেষ করে তৃতীয় দিনই চলে এসেছিস।।। তারপর অনেক চিন্তায় পরে গেলাম।।।তকে অনেক খুজেছি কিন্তু কোথাও পাই নি।।।পুলিশও তোকে অনেক খুজেছে কিন্তু কোথাও পায় নি।।।তোকে খুজে না পেয়ে এই ৭মাস অনেক কষ্টে আমরা কাটিয়েছি।।বাবা চল বাড়িতে চল।।
আমি যেতে চাইনি অনেক কষ্টে ভদ্রলোক আর ওনার সাথে আরেকজন আমার থেকে কিছুটা বয়সে বড় হবে ওনি অনেক বার বললেন কিন্তু রাজি হই নি।।কিন্তু পিচ্ছি মেয়েটার কথা ফেলতে পারলাম না।। তাই রাজী হতেই হল।।

তার প্রতি কেমন যেন আমার একটা মায়া কাজ করছে।।।তারপর ওনাদের সাথে ওনাদের বাসায় চলে গেলাম।।যাওয়ার আগে আমার সাথের লোকদের ঢাকার আস্তানায় যেতে বললাম।আর থানা থেকে জেনে নিলাম যে কে বা কারা আমাদের লোকের নামে থানায় ডায়রি করেছে।।।

অর্জিনাল লেখকের গল্প পড়তে #অসমাপ্ত_কাব্য_লেখক পেজে লাইক করুন।।বা ফলো করুন।।😘😘😘

তারপর বাসায় প্রবেশ করলাম।।ডুকার সময় যেন মনে হচ্ছে কোনো কিছু আমাকে পিছু টানছে।।।চোখের সামনে বেসে উঠছে আমার ছোটবেলা।।। আমি আর আমার থেকে ৫,৬ বছরের একটা মেয়ে খেলতেছি।।।
একপর্যায়ে আমি মেয়েটিকে তাড়া করলাম আমার খেলনা নষ্ট করার জন্য।।
তখন একটা মহিলা আমাদের আটকানোর চেষ্টা করছে।।।
সকল।স্মৃতি আমার মাথা গ্রাস করে ধরেছে।।।
তখন একজন মহিলা এসে।আমাকে জরিয়ে ধরে কান্না করতে করতে বলে বাবা কোথায় ছিলি তুই।। 🤔🤔🤔
কত খুজেছি তোকে কোথাও খুজে অয়াই নি।।।তখন তিনি দুইটা মেয়েকে ডাক দিলেন একজন এসে বলতেছে ভাই তুই কোথায় ছিলি।।আমাদের কথা কি একবারও মনে পরে নাই।।আরেকটা মেয়ে জরিয়ে ধরে অনেক কান্না করতেছে আর বলতেছে আমি সরি।।।বলেই অজ্ঞান হয়ে গেল।।
তখন সবাই মিলে।তাকে ধরে একটা রুমে নিয়ে গেল আমি বাড়িটা ঘুরে দেখতে লাগলাম ঘুরতে ঘুরতে একটা ঘরে আমার চোখ আটকে গেল।।দেখে মনে হচ্ছে খুব চেনা এই রুমটা।।তাই আমি রুমে ডুকে ঘুরে ঘুরে দেখতে লাগলাম।।

ডুকে দেখি,,,,,,,,,,,,,,

আপনাদের সাড়া পেলে নেক্সট পর্ব দিব নয়তো দিব না।।
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!