ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ৪

ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ৪

এভাবেই কেটে যায় ৪ বছর।। আজ আমাদের অনার্স ফাইনাল ইয়ারের শেষ পরীক্ষা। তাই আমরা চার বন্ধু আগে এসে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম।।
ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ৪
ক্ষেত যখন বড়লোকের ছেলে পর্ব - ৪

তখন সবার পরীক্ষার পরে কে কি করবে জানতে লাগলাম। সবার ইচ্ছা ফাহিম গ্রুপে চাকরি করার।।।।
সবার শেষে আমার পালা এলো আমি বললাম তেমন কিছু করব না।।বাবা মা যা বলবেন তাই করব,,তারপর বললাম -দোস্ত কিভাবে নিধিকে প্রপোজ করা যায়😣😣।।।(এই কয় বছরে নিধিকে ভালবেসে ফেলেছি😑😑😑😑)।।
সিয়াম বলল-গোলাপ নিয়ে হাটু গেরে বসে প্রপোজ করবি।আর কিছু করতে হবে না।।
এভাবে আড্ডা দিতে দিতে এক্সামের সময় হয়ে গেল।।
তারপর পরীক্ষা দিতে চলে গেলাম।।
পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর হাতে গোলাপ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি হিয়ার জন্য।।
কিছুক্ষণ পর নিধি তার বান্ধবীদের সাথে বাইরে বের হয় তারপর আমি তার সামনে গিয়ে বললাম -নিধি আমি তোমাকে কিছু কথা বলতে চাই।।
নিধি কিছুক্ষণ ভেবে তারপর বলল- আচ্ছা বল কি বলবে।।
আমি তার সামনে হাটু গেরে গোলাপ হাতে নিয়ে বললাম- যেদিন থেকে তোমাকে প্রথম দেখেছি সেদিনই তোমার উপর ফিদা হয়ে যাই জানি না তা কখন ভালবাসায় পরিণত হল।।
তাই আজ আর না বলে থাকতে পারলাম না।। I Love You Nidhi....I love you so much......Do you love me.....
ঠাস,ঠাস।।কি ভাবছেন চড়গুলা কার গালে পড়েছে।। আর কারও নয় আমার গালে পরেছে।।
নিধি-ছোটলোকের বাচ্ছা তর সাহস কি করে হয় আমাকে ভালবাসি কথা বলার।।আমি ভালবাসব তাও আবার তর মতো ছোটলোককে।।
তুই ভাবলি কি করে।।আসলে দোষ তর না তর বাবা-মার যে তর মতো চরিত্রহীন ছেলেকে জন্ম দিয়ে লালনপালন করেছে।।
এগুলো বলে নিধি সেখান থেকে চলে গেল।।।
আর আমি মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে চোখের জল ফেলছি।।তখন আমার বন্ধুরা এসে আমাকে সান্ত্বনা দিলা।।তারপর আমি তাদের সাথে কথা বলে বাসায় চলে আসি।।
রাতে বাবা বাসায় এসে জানালেন তার বিসনেস ক্লাইন্ট আজমল সাহেবের মেয়েকে কোনো গরিব ছেলে প্রপোজ করেছিল।।।আর মেয়েটি নাকি তাকে চড় মেরেছিল।।আর বললেন যে আগামী শুক্রবার ওনার মেয়ে মানে নিধির জন্মদিন তাই আমাদের ইনভাইট করেছেন।।আর বলেছেন বিশেষ করে আমাকে যেন নিয়ে যান।।কারণ-এখনো পর্যন্ত আমাদের বিসনেস ক্লাইন্টরা কেউ আমাকে দেখেন নি।।
তারপর সবার সাথে রাতের খাবার খেয়ে রুমে চলে আসি।। আসার আগে বাবাকে বললাম তিনটা appointment letter বানাতে এবং তার আমার পার্সোনাল সেক্রেটারি হিসেবে থাকবে।।আর এই ঠিকানায় পাঠিয়ে দিতে।।।(তিনজনের ঠিকানা দিয়ে)আর বললাম আমি কাল থেকে অফিসে যাব।। আর আমার সিকিওরিটির জন্য ৫ জন গার্ড লাগবে এবং দুইদিনের মধ্যের যেন সেক্রেটারি + গার্ড রেডি থাকে।।
(কারণ- আর ৫ দিন পর নিধির জন্মদিন।। সেদিন তাকে বিশাল সারপ্রাইজ দিব যা সে কখনো ভুলতে পারবে না।।)
তারপর বাবার সাথে কথা বলে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ি।।
পরেরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে রেডি হয়ে নতুন গাড়ি নিয়ে অফিসের জন্য বেড়িয়ে পড়ি।আজকেই আমার প্রথমদিন অফিসে + মিটিং।।
রাস্তায় জ্যাম পড়ে গেলাম তখন দেখি একটা বাচ্চা মেয়ে ফুল বিক্রি করতাছে।।
তারপর,,,,,
আপনাদের সাড়া পেলে নেক্সট পর্ব খুব তারাতারি দিব।।
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!