[ Love Story ] ভালোবাসার গল্প যা আপনাকে কিছু মুহুর্ত আনন্দ দিবে

কারো হাতের কোমল স্পর্শে ঘুম ভেঙ্গে জেগে উঠছি। তারমানে এতক্ষণ রিতু স্বপ্নের মাঝে কান্নাকাটি করছে । মুন্নী দাঁড়িয়ে আছে আমার সামনে তার পরনে কালো শাড়ী সাদা ডাক্তারি এপ্রোন ।

আশ্চর্য মুন্নী সাড়ি পেল কিভাবে ? রাতের আঁধারে তো সে থ্রি পিছ পরনে ছিল কিন্তু এখন শাড়ি দেখছি কেন ? রাতে জ্বরের মধ্যে ভুল দেখেছি নাকি এখন ভুল দেখছি ?– কেমন

আছো তুমি ? (মুন্নী)

ভালো না । (আমি)

কেন কি হইছে ?

জ্বর এসেছে ভালো কথা , কিন্তু জ্বরের মধ্যে সব কিছু উল্টো পাল্টা দেখি এটার মানে কি ?

কি এমন দেখছো তুমি ?

রাতে তোমার পরনে দেখলাম থ্রি পিছ , একটু আগে রিতু এসে মরা কান্না করলো , এখন দেখি তোমার পরনে কালা শাড়ী ।

হাহাহা , শোনো রাতে আমার পরনে থ্রি পিছই ছিল । আমার বাসা হচ্ছে গোয়ালখালী , এই ধরো হাসপাতাল থেকে ৭ — ৮ মিনিট লাগবে যেতে । তাই সকাল ছয়টা বাজে আমি বাসায় গিয়ে গোসল করে তারপর শাড়ি পরে এসেছি । তুমি মোটেই ভুল কিছু দেখনি ।

আমার মোবাইল কোই ?

আমার কাছে আছে , কিন্তু বন্ধ করে রাখছি বারবার শুধু ফোন আসছিল । তাই বন্ধ করে রাখছি আমি ।

একটা কথা বলি ।

হমম ।

আমার স্যালাইন টা একটু খুলে দিবা ? আমার ওয়াশরুমে যেতে হবে ।

হমমম দিচ্ছি আমিই তোমাকে সাহায্য করছি ।

বিছানা থেকে নামতে গিয়ে বুঝতে পারছি আমি কতটা দুর্বল । মাথা ঘুরিয়ে পড়ে যাওয়ার মত বারবার উপক্রম হলো ডাক্তারের কাঁধে ডান হাত দিয়ে ভর দিয়ে চললাম । বিদেশি কোন একটা পারফিউম এর ঘ্রান নাকে এসে লাগছে মিষ্টি একটা গন্ধ ।

ফ্রেশ হয়ে এসে বিছানায় আবার সুয়ে পড়লাম আমি

কিন্তু সে বললো যে, খাওয়া দাওয়ার জন্য আরো কিছুক্ষন বসে থাকতে হবে ।

খেতে ইচ্ছে করছে না মুন্নী।

বাসা থেকে পায়েস রান্না করে আনছি এখন তুমি সেটা খাবে ।

পায়েস কেন ?

ডেঙ্গু আক্রান্ত সকল রোগী তরল খাবার আর ফুল মুল খেতে হবে ।

পায়েস না এনে যদি নুডলস আনতে তাহলে তৃপ্তি করে খেতাম ।

একবার সুস্থ হয়ে যাও তারপর বাসায় নিয়ে সব কিছু খাওয়াবো ।

সে সুযোগ হয়তো পাবে না । কারন রিতু আর বড় চাচা চাঁচি যদি জানতে পারে তবে সবাই এসে হাজির হবে ।

-তাহলে তোমার মোবাইল তুমি পাচ্ছো না আর ।

— কেন কেন কেন .?

— যেন বাড়িতে কাউকে খবর দিতে না পারো ?

— আজব , তোমার ডাক্তাররা বলবে না যে, এই রোগীর আত্মীয় স্বজনরা সব কোথায় ? কেউ তো দেখার জন্য আসছে না ।

— না বলবে না ।

— কেন ?

— সবাই জানে আমি তোমার আত্মীয় ।

— ওমা তাই নাকি ?

— হমম ।

— তোমার ডিউটি কখন ?

— আর পনের মিনিট আছে কিন্তু ডাক্তার দের কি ঘড়ি দেখে ডিউটি চলে বলো ?

— না । কিন্তু তুমি তো ট্রেইনার ।

— তো কি হইছে ?

— আসলে আমার পাশে কিছুক্ষণ তোমার দরকার ছিল ।

— বলো , আমি প্রয়োজনে নার্স দিয়ে যাব মাঝে মাঝে এসে দেখে যাবে ।

— আরে না বিষয় টা পারসোনাল । গতকাল তো ফেসবুকে কোন গল্প দিতে পারি নাই তাই আজকে যেভাবেই হোক দিতে হবে । কিন্তু আমি তো লিখতে পারবো না তাই আমি বলবো আর তুমি টাইপ করবে।

— আচ্ছা ঠিক আছে । সন্ধ্যা ছয়টা বাজে লিখে দিব আর দুজনেই গল্প করবো হুম ?

— এর ভিতরে কি আর দেখা হবে না ?

— অবশ্যই হবে একঘন্টা পর পর এসে তোমাকে আমি দেখে যাবো ।

— আচ্ছা ঠিক আছে ।

আবারও বালিশে মাথা রেখে সুয়ে পড়লাম কেমন অসহ্য আর অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে আছি । ফোটা ফোটা স্যালাইনের গ্লুকোজ আমার শরীরের রক্ত কনার সাথে মিশে যাচ্ছে । কেবিনের দেয়ালের রং টা বাদামি । কিন্তু আমি এখানে ইট পাথর দেখতে পাচ্ছি না কেন ? চোখের সামনে প্রকৃতি মাঠঘাট ভেসে ওঠে ।

সারি সারি ছন্দে মনোমুগ্ধকর দৃশ্যে সবুজ ফসলের মাঠের ভিতর হতে এঁকেবেঁকে বয়ে চলছে গ্রামের পথের সন্ধান । পরস্পরের ভ্রাতৃপ্রেমী হয়ে তালগাছ গুলো দাড়িয়ে রয়েছে কিনারে ।

খোলা মাঠে বিস্তৃত জমা হয়ে আছে জলকাদায় মাখা পদ্মা পেরিয়ে ফুলের গাছ কিংবা সবুজ প্রকৃতি। সবুজ ঘাস আর ফসলের সৌন্দর্য বিস্তৃত হয়ে গেছে সমগ্র গ্রামময় ।

হেমন্তের গাঙচিলের ঝাঁকের দল উড়ে যায় নীল আকাশ ছুয়ে । দুরের আকাশ মনে হয় নেমে এসেছে প্রকৃতির সবুজের মাঝে । হয়তো সেখানে দু হাত বাড়ালে আকাশ ছুয়ে দিয়ে যায় ।

কিন্তু কি লাভ ঐ আকাশ ছুয়ে ? পাকা রাস্তা রেখে কিনারা পাশের সবুজ ঘাসের অগ্রভাগ এর উপর দিয়ে হাটতে চাকচিক্যময় মন ।

বেলা এগারোটার দিকে মুন্নীর সাথে আরেক জন মহিলা প্রবেশ করলো কেবিনে । পরিচয় যদিও বলেনি আগে কিন্তু বুঝতে পারছি আমি এটা তার মা । চল্লিশ এর কিছু উপরে বয়স হবে, হাতে একটা হটপট এর বাটি । মনে হয় আবারও তরল খাবার পায়েস ।

— কেমন আছো বাবা ? ( মহিলা )

— জি আলহামদুলিল্লাহ ভালো । আপনি কেমন আছেন ?

— আমি ভালো আছি । তোমার শরীর টা মোটামুটি ভালো তো ?

— জি আন্টি ।

— আমি মুন্নীর মা ।

— বুঝতে পারছি আমি ।
ভালোবাসার গল্প
ভালোবাসার গল্প

— মা তুমি থাকো আমি গেলাম বড় ডাক্তার অডিটে আছেন যেতে হবে আমাকে । ( মুন্নী )

— আচ্ছা ঠিক আছে যা । (আন্টি)

— গতকাল বিকেলে আমি এসেছিলাম কিন্তু তুমি তখন অজ্ঞান ছিলে । (আন্টি)

— মুন্নী বলছে আমাকে ।

— আমার মেয়েটা বড় পাগলী টাইপের বাবা , ওর বাবাকে খুব বেশি ভালো বাসতো ।

— সব মেয়েরা তার বাবাকে ভালবাসে আর ছেলেরা তার মা’কে বেশি ভালবাসে ।

— হমমমম কিন্তু আমার কোন ছেলে নেই । মুন্নীই আমার একমাত্র মেয়ে । ওর জন্মের সময় আমার অপারেশন হয়েছিল তখন কি যেন একটা সমস্যা হইছে । তখন আমি দ্বিতীয় বার আর মা হবার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলি ।

— ওর বিয়ে দিচ্ছেন না কেন ?

— ও বিয়ে করবে না ।

— কেন কেন ? ডাক্তারি করে সারাজীবন মানুষের সেবা করে কাটিয়ে দেবে নাকি ?

— না বাবা ও একজনকে ভালবাসে ।

— তাহলে সেই ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিয়ে দেন তাহলে তো হয়ে যায় । আর মুন্নী ডাক্তার মেয়ে ওকে তো সবছেলে বিয়ে করবে ।

— তুমি করবে ?

— হাহাহাহা হাহাহা । সবাই আমাকে নিয়ে এত ঠাট্টা কেন করে সত্যি সত্যি বুঝতে পারছি না আমি ।

— আমি কি ঠাট্টা করলাম ?

— আপনি এখানে আসলেন ১৫ মিনিট হলো তার মধ্যে আপনি আমাকে বলছেন আপনার মেয়েকে বিয়ে করার জন্য । আবার এটাও বলছেন যে, আপনার মুন্নী একজনকে ভালবাসে তার জন্য সে বিয়ে করতে চায় না ।

— হুম ঠিক আছে , কিন্তু এখানে ঠাট্টার কি হলো ?

— মুন্নী তোমাকে ভালবেসে ।

— হিহিহিহি হিহিহিহি হিহিহিহি হিহিহিহি । এটা কোন ধরনের রসিকতা আন্টি ? মুন্নী গতকাল হতে আমাকে দেখছে আর তার মধ্যে ভালবাসা ? আবার সেজন্য বিয়েও আটকে আছে ?

— দেখ বাবা আমি তোমার মায়ের মত । আর আমি তোমার সাথে রসিকতা, ঠাট্টা, উপহাস কিছুই করছি না কিন্তু । আচ্ছা তুমি জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে তাই না সজীব ?

— জি ।

— মুন্নীও ওখানেই এডমিশন নিয়েছিল । কিন্তু সে তার আগে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা দিছিল । সেই কারণে ওয়েটিং লিস্টে থাকার পরে হঠাৎ করে এই খুলনা মেডিকেল কলেজে ও চান্স পেয়ে গেল । এবং আমরাও খুলনা চলে আসি ।

— কত বিচিত্র জীবন আমার ।

— কেন ?

— আমি বিগত পাঁচ বছর ধরে হাজার দুঃক কষ্টের মাঝে সংগ্রাম করে বেচে আছি । মা বাবা মারা যাওয়ার পরে কোন আত্মীয় স্বজন ছিল না আমার । আর জন্মের পরে প্রথম দাদা বাড়ি এসে জানতে পারি বড় চাচার ছোট মেয়ে পছন্দ করে আমাকে । আমি একটা মেয়ের সঙ্গে রিলেশনে ছিলাম পাঁচ বছর আগে , তার বিয়ে হয়ে গেছিলো । কিন্তু দাদা বাড়ি গিয়ে দেখি সে ঐ গ্রামের মেয়ে , বিয়ে হয়েছিল ঠিকই কিন্তু তিন মাসের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে গেছে । এখন এই হাসপাতালে এসে মুন্নীর সাথে পরিচয় সেও আমাকে ভালবাসে । আমার জীবনের সমস্ত ভালবাসা মনে হয় একসাথে এসেছে ।

— তোমার জীবনটা ভবঘুরে হয়ে গেছে তাই না ?

— অনেক টা তাই ।

— কাল মুন্নী তোমাকে হাসপাতালে আনার পরে আমার কাছে মোবাইল করে ৷ খুশিতে মনে হয় তার সকল হৃদপিণ্ড কেঁপে উঠল বারবার । আমি মা হয়ে সে ভালবাসার গভীরতা অনুভব করতে পারি ।

— আমার কি মনে হয় আন্টি জানেন ?

— কি মনে হয় ?

— আমার চাচাতো বোন রিতু , পুরনো আফরোজা আর আপনার মেয়ে এদের কারো সাথে আমার বিয়ে হয়ে না ।

— কেন ?

— জানিনা আমি । দুনিয়াতে খুব অল্প কিছু মানুষ আছে একান্ত আলাদা নক্ষত্রের মত । যারা কিন্তু আসলেই আলাদা ও নিরীহ , তারা হাজার সাধন করে সারা জীবনেও কারও কাছে পরম আপন হতে পারে না । অসজ্ঞায়িত অবজ্ঞায় তাদের কেউই বুঝে না ধরনীতে । তাই তো এই দুনিয়ায় তাদের সব থেকেও আসলে শূন্যতা ছাড়া কিছুই থাকে না । তারা একা আসে ছায়া নিয়ে । একা ঘুরে ছায়া হয়ে । কিন্তু একাই থাকে চিরতরে , বেলা শেষে একাই যথেষ্ট বিভোরে চলে যায় ! তাদের জীবনে কিছু মানুষ আসে যারা সামান্য সময়ের জন্য পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেয় । কিন্তু আকাশের সাধা মেঘের মত অচিরেই হারিয়ে যায় । যেটা বুঝতে পারা যায় না কিন্তু নিশ্বাসের শব্দে অনুভব করা যায় ।

— তুমি সত্যি সত্যি একজন সাহিত্যক ।

— হাহাহা কেন আন্টি ?

— কত সুন্দর গুছিয়ে কথা বলো । আর নিজের অনুভূতি প্রকাশ করো ।

— তাই ?

— হুম ।

— আচ্ছা বাবা আমি এখন আসি তাহলে , বিকেলে এসে আরেকবার দেখে যাবো ।

— আপনার শুধু শুধু কষ্ট করতে হবে না । আর মুন্নী তো আছেই এখানে ।

— তবুও ।

— আচ্ছা ঠিক আছে আসিয়েন ।

একটা নার্স এসে Napa Extra, Finx ( 2o ) আর এক মগ খাবার স্যালাইন খাইয়ে গেল । ডেঙ্গু হইছে কিন্তু বমি ভাব টা নেই তাই শরীর টা মোটামুটি ভালো লাগে । আমি আছি কেবিনের মধ্যে নাহলে বেডে থাকলে হয়তো চারিপাশে অসংখ্য মুমূর্ষু অসুস্থ আর অসহায় মানুষ দেখতে পারতাম ।

সারাদিন ভাবনা চিন্তা করে কেটে গেল মুন্নী একটু আগে বাসায় গিয়েছে । আন্টি এসেছিল আবার তার সাথে চলে গেছে , আর বলছে গোসল করেই সে তাড়াতাড়ি চলে আসবে । কিন্তু আসার সময় যে চির পরিচিত তরল খাবার পায়েস নিয়ে আসবে তাতে কোন সন্দেহ নেই আমার ।

সাড়ে সাতটা বাজে মুন্নী আসলো , হাতে লাগানো গ্লুকোজ স্যালাইন শেষ হইছে কিছুক্ষণ আগে । আজ আর দিবে না কারন গতকাল অসুস্থ ছিলাম বেশি । তাই একটার পরে একটা চলছে যেন শরীরের রক্ত জমাট হয়ে না যায় ।

— তাড়াতাড়ি পায়েস টা শেষ করো আমার প্রচুর ঘুম পাচ্ছে । তোমাকে ওষুধ খাওয়ানোর পরে আমি ঘুমাবো ।

— বাসায় গিয়ে ?

— পাগল নাকি তুমি ?

— তাহলে কালকের মত চেয়ারে ?

— জি না সাহেব , গতকাল চেয়ারে একটুও ঘুমাতে পারিনি । আজ সারাদিন ঘুমের যন্ত্রণায় অস্থির হয়ে গেছি একেবারে ।

— তাহলে এক কাজ করো , তুমি এই বিছানায় সুয়ে পড়ো আমি চেয়ারে বসে থাকি ।

— একদম চুপ । আমি তোমার ঐ পাশে ঘুমাবো ।

— দেখো আমি ২৫ বছরের যুবক। কোন খাস পীর আউলিয়া , কিংবা মুফতী মুহাদ্দিস না যে তোমার মত সুন্দরী আমার পাশে সুয়ে থাকবে আর আমি ছুয়েও দেখবো না ।

— সে সুযোগ তুমি চাইলেও পাচ্ছো সাহেব ।

— মানে কি ?

— তোমাকে ঘুমের ঔষধ দিয়ে ঘুম পারানো হবে ।

— কি সাংঘাতিক কথাবার্তা ।

— হমমম কি মনে হয় ?

— সেদিনের সেই কথা মনে পড়লো ?

— কোন কথা ?

— তুমি যেভাবে মেসেঞ্জারে আমার নাম্বার চাইলে ।

— হাহাহা হাহাহা । ভয় পাচ্ছো কেন ? ঘুমের ঔষধ দেব না ।

কেবিনের দরজা বন্ধ করে মুন্নী সত্যি সত্যি আমার বিছানায় যায়গা করছে দেখে অবাক হচ্ছি । তবুও কিছু বললাম না আমি , আমার মুখের সামনে একটা মাছি উড়ছে । এখন মাছির কি কাজ সেটাই বুঝতে পারছি না আমি কি আজব ? একটু পরে মুন্নী মশারী টানিয়া দিল কারন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীকে যে মশা কামড়াবে সেই সাধারণ মশাও ডেঙ্গু বহন করে ।

সুয়ে সুয়ে আমি গল্প বলছি আর মুন্নী সেটা লিখছে , প্রায় দেড় ঘন্টা বসে গল্প টা শেষ হইছে । কিন্তু এতক্ষণ মুন্নীর মোবাইলে টাইপ করছে আমার ফোন আমি আর হাতে পাইনা । জোর করে নিতও ইচ্ছে করছে না , ভাবছি কিছুটা সময় তার শাসনে যদি চলি তাহলে মন্দ কি ?

মেয়েরা গোছানো মানুষ পছন্দ করে না। মেয়েরা পছন্দ করে অগোছালো মানুষ । রোদনভরা এ বসন্তে কিছু কিছু অতৃপ্ত রসনার মানুষ সত্যি খুব অসহায় করুন । দুনিয়াতে সারাজীবনে তাদের ভালোলাগা মন্দলাগা, ক্লান্ত কথা, ব্যথা বেদনা গুলো বলার মত কেউ থাকে না । আগ্রহ নিয়ে কেউ শোনে না ।

তাদের কিছু অবাক্ত কথা মনের গভীরেই রয়ে যায় আর কিছু কিছু স্মৃতি এক সময় পরিনত হয় দীর্ঘ শ্বাসে । মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষগুলোই ধরণীর আসল রূপ দেখতে পায় ।

চোখ বন্ধ করে সুয়ে আছি কারন একনাগাড়ে কিছু বকবক করে ক্লান্ত মনে হচ্ছে ।

রিতুর কথা মনে পড়লো আমার , তার সাথে এমনি করে পাশাপাশি সুয়ে ছিলাম । সে অনেকটা শক্ত করে জড়িয়ে ধরেছিল এই ক্যাকটাসকে ভালোবেসে।
তার সেই নিষ্পাপ মিষ্টিরিয়াজ হাসি মাখানো পরম ভালবাসা অগ্রাহ্য করার ক্ষমতা ছিল না আমার । কিন্তু বাস্তবতার ক্ষেত্রে আমি রিতুর হতে বিচ্ছিন্ন হতে চাই ।

একটি মেয়ে খুব সহজে কাঁদতে পারে। কারণ তারা মাঝে মাঝেই একটু কষ্ট পেয়েই কেঁদে অভস্ত। কিন্তু একটি ছেলে তখনই কাঁদে যখন সে তার কষ্ট কে ধরে রাখতে পারে না। ওই মুহুর্তে তার কান্নাটা এতো টাই তীব্র হয়। যে পৃথিবীর সমস্ত সুখ ও যদি এনে দেওয়া হয় কারো ক্ষমতা নেই সেই কান্নাটুকু থামানোর ।

বুকের উপর মুন্নীর হাতের স্পর্শ টের পাচ্ছি । আমার মশারীর উপরে একটা চাদর দেয়া হয়েছে যেন ঐ বাতির আলো সরাসরি মুখে না লাগে এটা মুন্নীর বুদ্ধি ।

— ঘুমিয়ে গেছো তুমি ? ( মুন্নী )

— না বলো । (আমি)

— কেমন লাগছে এখন ?

— অনেক ভালো ।

— আমার দিকে তাকাও ।

— হুম বলো ।

— শক্ত করে জড়িয়ে ধরবে ?

— আর কত নিজেকে কন্ট্রোল করবো মুন্নী ? আর আমি তো অসুস্থ শুধু শুধু কেন ঘুমন্ত শরীরে নাড়া দিচ্ছো ?

— একদম চুপ করো । মনের মধ্যে শয়তানি বুদ্ধি ছাড়া আর তো কিছু নেই মনে হয় ।

— ওই আমি খুব ভালো ছেলে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি আমি । এখন জ্বর তাই পড়তে পারি না ।

— তাহলে দাড়ি কাটো কেন ?

— কিছু দিন পরে রেখে দিব ।

— তার আগে যদি মরে যাও ।

–( আমি চুপচাপ )

আমার ডান হাতে ক্যানেল এর সুইচ গামটেপ দিয়ে লাগানো আছে । তাই মুন্নী আমার বাম পাশে সুয়ে আছে । আমি এখন পৃথিবীর সকল রোমাঞ্চকর কথা মনে করার চেষ্টা করছি । আফরোজার স্মৃতি বিজড়িত মুহূর্ত , রিতুর নিষ্পাপ কণ্ঠে কান্না জড়িত ভালবাসা । সেই জোৎস্না রাতের আঁধারে প্রকৃতির মাঝে দাড়িয়ে বলা আমার সত্য /মিথ্যা প্রতিশ্রুতি । সবকিছু একেক করে ভেসে আসে চোখে । আচ্ছা মুন্নী যদি জানতে পারে ওর পাশে একই কম্বলের নিচে সুয়ে আমি তাদের কথা চিন্তা করছি । তাহলে কি সে খুব বেশি রাগ করবে ?গভীর রাতে হঠাৎ করে ঘুম ভেঙ্গে গেল । অনুভব করছি মুন্নী শক্ত করে জড়িয়ে আছে আমি দুর্বল শরীর নিয়ে অসহায় । ভাবলাম সে কি সত্যি সত্যি সারারাত ঘুমাতে পারবে একবার ইচ্ছে হলো তাকে ডেকে দুজনেই গল্প করবো কিন্তু আবার ইচ্ছে টা নিভিয়ে ফেলি । থাক না দুজনের অনুভূতি নিস্তব্ধ রাতের মত করে । সে হয়তো জানেনা আমি জেগে উঠছি আর আমিও তো জানিনা সে কি জেগে আছে নাকি ঘুমের ভিতরে আমাকে কোলবালিশ বানাচ্ছে ?

এই প্রশ্নের জবাব গুলো থাকনা অজানা তাতে তো আর খুব বেশি ক্ষতি নেই ।

আমাদের লেখাই কোন ভুল থাকলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন সবাই।

ধন্যবাদ সবাইকে। 
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!