#অচেনা_কেউ #পর্ব_৫

#অচেনা_কেউ
#পর্ব_৫
লেখক_আয়াত_মুস্তারিহ_আয়ান
.
#অচেনা_কেউ #পর্ব_৫
#অচেনা_কেউ #পর্ব_৫

.
অচেনা সেই মানুষটার নাম্বার থেকে বাবার নাম্বারে মেসেজ.
.
লিখা ছিলো আপনার মেয়ে আয়ানের সাথে ঘুরে..
.
একটু উপরে গিয়ে দেখি সে ই বাবাকে কবরস্থান এ আমার যাওয়ার কথা জানিয়ে ছিলো..
নিজেই আমাকে ডাকলো আর নিজেই আমাকে জানালো..
.
এর মানে ঠিক বুঝতেছি নাহ..
.
.
.
যাই হোক বাবার জন্য বড়ি নিয়ে যায় আয়েশা..
.
.
অন্যদিকে আয়ান হাসপাতালে যায়..
.
কিরে আয়ান..হাওয়া হয়ে যাস কোথায় তুই??ঠিক মতো তোকে দেখাই যায় নাহ..(আরহাম)
>আরে তুই তো জানিশ ই কতো কাজ আমার..
>হুর..তোর ও কাজ..
>আচ্ছা আরিশা কেমন আছে??
>বলা যাচ্ছে নাহ..মেয়েটা বাচবে কি নাহ..
>আরহাম খুন করে ফেলবো তোকে আমি..
>আয়ান সব কিছু এভাব হয় নাহ..আরিশার চিকিৎসা চলতেছে কিন্তু আরিশা বাচবে কি না আমি জানি নাহ...ইনফেক্ট আমরা কেউ ই জানি নাহ..
>আহহহহহ...
.
.
আয়ান রাগ করে চলে আসে..আরিশার কাছে.
আরিশা কে দেখতেই যেনো আয়ানের সব রাগ চলে যায়..
.
কতো নিষ্পাপ লাগছে মেয়েটাকে.
কতোই না ভালোবাসা ছিলাম তাদের.মাঝে..আজ এই আয়েশার জন্য সব শেষ হয়ে গেলো..
.
আয়েশা তো বেচেই গেলো..আমার আরিশার আজ এই অবস্থা..
.

এমন সময় রুমে তিশাও প্রবেশ করে..
আয়ান..তুই আরিশার এই অবস্থার জন্য কেনো আয়েশাকে বার বার দায়ী করতেছিশ??
>দায়ী করতেছি না আমি তিশা...দোষ আয়েশার ই..
>না আয়ান..সেটা শুধু একটা এক্সিডেন্ট ছিলো..জাস্ট এ এক্সিডেন্ট..
.
.
না তিশা..আজ আমার আরিশার এই অবস্থার জন্য শুধু আয়েশা দায়ী..আর আয়েশার আমি এমন অবস্থা করবো নাহ..
কিন্তু তার আগে ওর বিশ্বাস টা অর্জন করতে হবে আমার..কড়া ভাবে.তার পর আমি ও তার এই অবস্থাই করবো যেমনটা আজ আমার আরিশার হয়েছে..
.
.
আগে বিয়ে করবো আয়েশাকে..তারপর ওর জীবনটাকে তিলে তিলে বিষিয়ে দিবো আমি..
>কিন্তু এর মধ্যে আরিশা যদি ভালো হয়ে যায় তখন??
>তখন আর কি..এই আয়েশা নামে মেয়েটাকে শেষ করে দিবো...
.
.
আয়ান??তুই এতোটা নিচে নামতে পারতেছিশ??
>আরিশা আমার অক্সিজেন তিশা..
আর অক্সিজেন ছাড়া একটা মানুষ কিভাবে বাচে??আমি মারা গেছি..শুধু বেচে আছি জিন্দা লাশ হয়ে. আর এই লাশ নিজের জিদের আগুনে যে কাউকে জ্বালিয়ে রাখ করে দিতে পারে...
.
.
আয়ান রাগে বেরিয়ে যাচ্ছে..
যাওয়ার আগে আরহাম কে শুধু জিজ্ঞেস করলো..
.
.
আরহাম আরিশার ঠিক হওয়ার সম্ভাবনা কতো %??
.
৫%
.
সমস্যা নাই আরহাম..ঠিক হয়ে যাবে ও.. ততোক্ষনে নাহয় আমি আমার কাজটা শেষ করে ফেলি...
.
.
কি কাজ আয়ান??
>সেটা তোর জানতে হবে না আরহাম...হাহাহা.
.
.
পৈশাচিক এক হাসি দিয়ে বেরিয়ে এলো আয়ান..
.
আয়ান আয়েশার সাথে কি করতে যাচ্ছে..সবাই জানি কিন্তু কতোটা টর্চার আয়েশার কপালে আছে..কেউ জানে নাহ..
.
.
রাতে আয়েশা শুয়ে আছে..
ঘুমাচ্ছে সে..
কিন্তু কেনো জানি আজ আয়েশার একটু ভয় ভয় লাগতেছে..
সে না চাইতেও ভয় তাকে গ্রাস করে নিতেছে.।
.
সে স্বপ্নে দেখতেছে অনেক লোক একসাথে তাকে মারতে আসছে..
কিন্তু কেউ তাকে মারতে পারতেছে নাহ..কালো এক ছায়া তার হয়ে যুদ্ধ করতেছে..
.
কিন্তু হঠাৎ সেখানে আয়ান এলো..
.
আয়ানকে দেখে কালো ছায়াটাও ভয় পেয়ে গেলো..
আয়ান হাসছে কেমন করে..,
হঠাৎ আয়েশার চোখ খুলে যায়..সে উপরের দিকে তাকাতেই দেখে ফেনে একটা লাশ ঝুলছে আর সেই লাশটা আর কারো নয় আয়েশার নিজের..
.
.
আয়েশার গায়ের লোম দাড়িয়ে যায়..
সে বুঝতে পারতেছে নাহ কি করবে সে।।
.
সে গোঙাতে থাকে..
লাশটি তার দিকে তাকিয়ে হাসছে..
.
সে যেনো ভয়ে নিস্তেজ হয়ে যাচ্ছে..
..
হঠাৎ বারিন্দার দরজা খুলে যায়..
আয়ান এসেছে..
.
উপরে তাকাতে দেখে লাশটি নেই..
.
আয়েশা দৌড়ে গিয়ে আয়ান কে জড়িয়ে ধরে..
আর কাদতে থাকে..
.
আয়ান ও আয়েশাকে জড়িয়ে ধরে আর জিজ্ঞেসা করে যে কি হয়েছে..
.
আয়েশা সব বলে তাকে..
.
.
>আরে পাগলি ওসব স্বপ্ন ছিলো তোমার..
>না আমি দেখেছি..সে আমার দিকে তাকিয়ে হাসছিলো..
>আমি বললাম না স্বপ্ন ছিলো সেটা..
>আয়েশা আয়ানের কথায় চুপ হয়..
আয়ান আয়েশাকে নিয়ে খাটে বসে..
.
আর আয়েশার চুলে বিলি কেটে দিতে থাকে..
.
আয়েশা আয়ানকে জড়িয়ে ধরে..
আয়ান আসতে আসতে আয়েশার মাথা উপরের দিকে তুলে..
.
প্রথমে আয়েশার কপালে চুমু আকে..
.
কেমন জানি এক অনুভুতি হতে থাকে আয়েশার..
.
আয়ান আসতে আসতে আয়েশার ঠোটের দিকে এগুতে থাকে..
যেনো কোন এক গভীর মুহুর্তের প্রস্তুতি নিতে যাচ্ছে তারা।।
.
হঠাৎ আয়েশার ফোন বেজে উঠে.।
.
আর তাদের ধ্যান ভেংগে যায়..
.
আয়েশা ফোন হাতস নিয়েই দেখে যে...আয়ান ফোন করেছে..
.
আয়েশা যেনো ৪৪০বোল্টের ঝটকা খায়..
.
আয়ান তো তার সামনে বসে আছে..তাহলে তাকে কে ফোন করলো??
.
.
সে ফোন রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে কেউ বলে উঠে..
আয়েশা আমি তোমার বাসার নিচে বারান্দার দরজা খুলো আমি উপরে আসবো..
.
.
এবার আয়েশা আরো বড় ঝটকা খায়..
.
যদি আয়ান নিচে থেকে থাকে তাহলে সামনের লোকটা কে??
.
এমন সময় সামনে থাকা লোকটা হাসতে থাকে..
.
আয়েশা ভয়ে খাট থেকে উঠে দরজার কাছে চলে যায় কিন্তু দরজা খুলতে পারতেছে নাহ..
.
আর সেই লোকটা জোড়ে জোড়ে হাসছে..
.
আয়েশা তো ভয়ে শেষ..
তাহলে কি হবে এখন আয়েশার??আর এই লোকটি ই বা কে???
.
.
#চলবে..
.
.
.
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ ,
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!