রাত যখন গভীর Season:02 Part :33

#রাত যখন গভীর 

#জান্নাতুল মাওয়া মহুয়া 

#(jannatul mawa moho)

Season:02

Part :28

************

রাত যখন গভীর Season:02 Part :33
রাত যখন গভীর Season:02 Part :33


রিনি আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছে কন্ঠ টার দিকে।
রিনি ছাদে উঠেছে।অতঃপর
রিনি দেখতে পেল,
একটা ছেলে।কিন্তু ঐশী চোখ বন্ধ করে পড়ে আছে ছাঁদে।সেন্স লেস হয়ে।
ছেলে টার চোখ জোড়া নীল।
রিনি বলেঃ কে আপনি?
আমার বান্ধুবীর সাথে কি করছেন?
দূরে সরেন বলছি???
ছেলে টা বলেঃ আমি আলাউদ্দিন। আমি রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম।তখন মেয়ে টা দেখি রাস্তা তে পড়ে আছে। আমি মেয়ে টাকে ঠান্ডা বাতাস পাই মতো ছাদে নিয়ে আসি।
মেয়ে টা মনে হয়, ঝাল কিছু বেশি খেয়েছে?তাই ঝাল এর প্রকোপ বেশি হয়ে সেন্স লেস হয়ে গেছে।
রিনি বলেঃআপনি কেমনে জানলেন?
তাছাড়া, ও এখন কেমন আছে?
আলাউদ্দিন বলেঃ আমি মেডিকেল এ পড়ি।
তাই বুঝতে দেরি হয়নি।একটু পর সেন্স ফিরবে।
বেশ কিছু সময় পর, ঐশী চোখ জোড়া খুলে দেখে। তার সামনে একটা ছেলে দাঁড়িয়ে আছে। তার ঠিক পাশে আছে রিনি।
ঐশী বলেঃ কি হয়েছে আমার?
হঠাৎ করে মাথা টা চক্কর দিয়ে উঠে। আর কিছু মনে পড়ছে না। একটু বল কি হয়েছে রিনি।।
রিনি বলেঃ মিস্টার, আলাউদ্দিন তোকে সারিয়ে তুলেছে।এবার চল।বাসায় যায়। বাকিটা পরে বলবো।
ঐশী বলেঃ যাবো তবে আগে তারি কিনবো।আজকে খাবোই খাবো।
রিনি বলেঃ আবে আমি কই পাবো?
ড্রাইভার চাচা ও তো নাই।
আলাউদ্দিন বলেঃ এটা কোন ব্যাপার না চলেন।
আলাউদ্দিন তাদের তারি নিয়ে দেয়। তারপর, দুজন ই আলাউদ্দিন কে বিদায় দেয়। রিনি গাড়ি চালাচ্ছে। ঐশী পাশে বসে আছে।
ঐশী বলেঃ থাম এখানে।
এখানে খাই।
রিনি বলেঃ বাসার সামনে গিয়ে খাবো।যাতে খাওয়ার পর বাসায় প্রবেশ করতে পারি।
যেমন কথা তেমন কাজ। গাড়ি পার্ক করেছে। তারি গ্লাসে নিলো।দুজন ই খাচ্ছে।
বেশ কিছুক্ষণ পর,
রিনি বলে উঠেঃ ঐশী, মাথা টা চক্কর দিচ্ছে কেন?
চারপাশে, ধোঁয়াশা দেখছি।এমন কেন?
ঐশী বলেঃ আমি তো অন্ধকার দেখছি চারপাশে।
দুজন ই তারি সব শেষ করে নিয়েছে। প্রচুর মাথা ধরেছে।
হঠাৎ,
ঐশী দেখে,
রিনি তাকে রুমে নিয়ে যাচ্ছে। সুন্দর করে শুয়ে দিলো।ঐশী আরাম করে ঘুমিয়ে পড়লো।আবার, আলতো করে চোখ জোড়া খুলে বলে,ধন্যবাদ রিনি।
রিনি আলতো করে দেখে,
ঐশী তাকে তুলছে। তবে চোখ জোড়া কছলে ফেলে রিনি।তখন দেখে প্রিন্স।
রিনি বলেঃ হে হে।ঐশী তোরে এখন দে দে দে দেখতে প্রিন্স এর মতো লাগছে। এমন কেন?মনে হয় এই প্রিন্স আমাকে পাগল করে ছাড়বে।
আবার,
রিনি বলেঃ তোই আমার কোমরে শক্ত করে ধর।না হয় পড়ে যাবো।
আর শাড়ি টা সামনে থেকে ঠিক করে দে।
একদম পড়ে যাচ্ছে আঁচল টা।
জা জানিস ঐশী, আজকে এই জালিম মাহমুদ স্যার একটা মেয়ের ফুচকা খাওয়া অনেক তৃপ্তি করে দেখছিলো।
কেনো জানি আমার খারাপ লাগছে। বুকের মধ্যে চিনচিন করছে। হুহ।
রিনি আবার বলেঃ এই ঐশী তোই হাসিস কেন?কিছু তো বল?
দুঃখের কথা বলছি। আর তোই আমাকে নিয়ে হাসছিস।
রিনি বকবক করতে করতে ঘুমিয়ে পড়লো। রিনি কে সুন্দর করে শুয়ে দিলো। রিনি গভীর ঘুমে মগ্ন হয়ে ঘুমিয়ে পড়লো। একদম পিচ্চি মেয়ের মতো।শাড়ি টা এলোমেলো হয়ে গেছে। কালো শাড়ী তে একদম অপসারী লাগছিলো রিনি কে।
ঐশী ও রিনি গভীর ঘুমে মগ্ন হয়ে ঘুমিয়ে পড়লো। সকালের আলোতে, রিনির চোখ জোড়া খুলে দেখে,সে বাসায় তার রুমে ঘুমিয়ে ছিলো এতক্ষণ। পাশে দেখে ঐশী ও ঘুমিয়ে আছে।
রিনি মনে করার চেষ্টা করে কি হয়ে ছিলো রাতে?
রিনি বলেঃ আচ্ছা,কেমনে আসলাম নিজের ঘরে?
রিনি চোখ বন্ধ করে চেষ্টা করছে কালকের রাতের কথা মনে করতে। তখনই, রিনির মনে পড়ে, সে নেশার ঘোরে আবছা আলোতে দেখেছিলো,
ঐশী,তাকে তোলে নিয়ে.....
💮
💮
হাবিব বলেঃ কিছু মনে করো না।প্লিজ শাম্মি।
আমি নিজেকে আর সংযত করতে পারি নি।কি যেনো অদৃশ্য একটা টান অনুভব করছি।যার ফলে এভাবে জাপ্টে ধরেছি।
তখনই শাম্মি বলেঃ হাবিব,আমি ও আপনাকে ভালোবাসি। অনেক ভালোবাসি।সারাজীবন আপনার সাথে থাকতে চাই।
হাবিব বলেঃ এটা কি স্বপ্ন নাকি?
মনে হচ্ছে সব স্বপ্ন। আমি এমন স্বপ্ন সারাজীবন দেখতে চাই। আমার ঘুম যেনো না ভেঙ্গে যায়। স্বপ্ন টা থাকুক এভাবে। চলুক দিনভর।
শাম্মি তার মুখ টা হাবিব এর কাছে নিয়ে গেল। শাম্মি আস্তে করে, একটা চুমু দেয়।
শাম্মি বলেঃ প্রিয়, এটা সত্যি।স্বপ্ন না।ভালোবাসি হাবিব।সেদিন নিরব ছিলাম কারণ, আমি কি চাই তা জানতে। কিছু টা সময় নিয়ে ছিলাম।
অবশেষে উত্তর পেলাম।তোমাকে ছাড়া আমার চলবে না।
হাবিব বলেঃ ধন্যবাদ এতো সুন্দর সারপ্রাইজ এর জন্য। শাম্মি তোমার হাতটা দাও?
শাম্মি হাতটা এগিয়ে দেয়। হাবিব আলতো করে হাতটা ধরে আর একটা চুমু দেয়। দুজন একটা চেয়ারে বসে।
হাবিব দেখে কিছু মেহেদীর টিউব পড়ে আছে । হাবিব একটা তোলে নেই।আর,শাম্মি কে দু-হাতে মেহেদী দিচ্ছে। দেখতে দেখতে দুহাত ভরে মেহেদী দিয়ে দেয়। শাম্মি অবাক হয়ে গেছে। কারণ, হাবিব অনেক সুন্দর করে মেহেদী দিয়ে দিলো।মেহেদী শুকিয়ে গেছে। দুজন তাকিয়ে আছে দুজনের চোখের দিকে।
শাম্মি বলেঃ হাবিব,আমি কি মা,বাবাকে আপনার কথা জানাবো?
হাবিব বলেঃ শাম্মি......
💮
💮
রাবেয়া বলেঃ কামাল এটা তো খুব সুন্দর জায়গা।তবে এটার নাম কি?
জান্নাত বলেঃ ওফ ফাইনালি পৌঁছে গেলাম।কমছে কম ২,৩ ঘন্টা এর সফর হয়েছে।
কামাল বলেঃ এটা হচ্ছে, আলির গুহা। এখানে অনেক টা পথ টা হাটতে হবে।সো কিছু খাবার বহন করতে হবে। আমি ও মুগ্ধ যায়। তোমাদের জন্য কিছু নিয়ে আসি খাবার জন্য।
সুমি বলেঃ হা।যাও। রহমান থাকুক আমাদের সাথে। কারণ, আমরা এমন নির্জন জায়গায় একা থাকলে ভালো হবে না।
সবাই সহমত জানাই। কামাল ও মুগ্ধ চলে গেল। রহমান বসে আছে জান্নাত, সুমি,রাবেয়ার সাথে।
জান্নাত বলেঃ সুমি!!!
সুমি বলেঃ জি।
জান্নাত বলেঃ কেমনে পারলি?
আমাকে এভাবে একা করে রাখতে। তোকে যে কতটা মিস করছি। বলার ভাষা হারিয়ে ফেলছি। তোই যখন কাছে ছিলি তখন তোর সাথে না থাকলে যে এতটা মিস করবো বুঝতে পারিনি।তবে এখন হারে হারে টের পাচ্ছি।
সুমি বলেঃ তোই আমার তেমন ই প্রিয় আছিস।
নিয়তি চাইলে আমরা আবার একসাথে থাকবো।
আমিও বড্ড কষ্ট পেয়েছি তোকে ছেড়ে। কাছে আয়।
সুমি জাপ্টে ধরে জান্নাত কে।দুজন বান্ধুবী বেশ কিছু দিন দূরে থাকলে একে অপর কে খুব মিস করে।
রাবেয়া বলেঃ আমি কি দোষ করলাম?
আমাকে ও জড়িয়ে ধরো না?
তিনজন ই হাগ করে।সুমির মনটা আজ অনেক ভালো লাগছে। একদম ফুরফুরে হয়ে গেছে। জান্নাত এর ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটে উঠেছে। রাবেয়া ও খুব খুশী।
রহমান বলেঃ আচ্ছা, জান্নাত।
জান্নাত বলেঃ জি জিজু।
রহমান বলেঃ মুগ্ধ কে কেনো কষ্ট দিচ্ছো?
প্রিয় মানুষ টা কে না পাওয়ার অনেক কষ্ট। কেনো দূরে সরিয়ে দিচ্ছো?
সুমি বলেঃ জান্নাত আমার মনে হয়,
এটা বলার সাথে সাথে, রহমান সুমির কথা টা বন্ধ করে দেয়।
রহমান বলেঃ জান্নাত, জীবন টা তোমাকে ভালো একটা উপহার দিচ্ছে।
কেনো সরিয়ে দিচ্ছো???
জান্নাত বলেঃ জানি না জিজু।
রাবেয়া বলেঃ জান্নাত, আসো ওই পাখি টা দেখি।ওইদিকে প্রকৃতি ও দেখতে সুন্দর।
রাবেয়া ও জান্নাত একপাশে চলে গেল।
সুমি বলেঃ আমার কথা কেনো বন্ধ করে দিয়ে ছিলে?
রহমান জিন বলেঃ সুমি,আসলে,
জান্নাত নিজে ও জানে না।তার অজান্তেই, সে মুগ্ধ কে....
চলবে.....
গল্প কেমন হচ্ছে কমেন্ট করে জানাবেন???😍
(বানান ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন)
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ ,
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!