রাত যখন গভীর Part :07

Story :#রাত যখন গভীর 
writer:#jannatul mawa moho
writer :
Part :07

রাত যখন গভীর Part :07
রাত যখন গভীর Part :07



হঠাৎ প্রিন্স বলে উঠেঃ উফ! আপনারা কিন্তু আমাকে বড্ড জ্বালাচ্ছেন।চুপ করে আছি তার মানে এই না, যা ইচ্ছা বলবেন। আর আমি হলাম প্রিন্স আমাকে বকা দেয়ার অধিকার আপনাদের নেই।আপনারা ভুলে যাচ্ছেন আমি জীন রাজ্যের প্রিন্স। আর এই বৃত্ত টি না থাকলে বুঝতে পারতেন সবাই কত ধানের, কত চাল।আমার বাবা, বোনের সামনে আমার অপমান করা।তখন হারে হারে টের পেতেন এই অপমানির ফল।
রাজা ( রশিদ) বলেঃ বড্ড বেয়াদব হয়ে গেছস!আমার মানসম্মান মাটির সাথে মিশিয়ে দিলি।আর এই ভাবে কেন কথা বলতেচস?।সত্যি করে বল, রিনির সাথে এমন করলি কেন?
তোর তো কোন ক্ষতি করে নি ও।
প্রিন্স ( ইনতিয়াজ) বলেঃ বলবো না আমি। কাউকে জবাব দিতে বাধ্য নই আমি।
তখনই শাম্মি বলেঃ আজ যদি তুই সব খুলে না বলিস।কসম।আমি এমন জায়গাতে যাবো খুঁজে ও পাবি না।আর মনে রাখবি তুর কোন বোন নেই!!!আজ যদি সব স্বীকার না করিস তাহলে মনে করবি তোর শাম্মি নামে কোন বোন ই আর কখনো ছিলোই না!!!
প্রিন্স বলেঃ আমি কার জন্য আসছি এখানে ? তুই না ডাকলে আমি জীবনে ও আসতাম না এখানে। বাবার ডাকে ও সাড়া দেয়নি।দেখিস নি। জানিস তো।।প্লিজ বোন এমন করিস না।আমি বাঁচতে পারবোনা তুই বিনা।
শাম্মি বলেঃ তাহলে সব স্বীকার কর???কিন্তু
তবু ও বেশ কিছুক্ষণ প্রিন্স চুপ ছিল।
অর্ক বলেঃ কি হলো বল?প্রিন্স!
কামাল বলেঃ প্রিন্স ধৈর্যের পরীক্ষা নিচ্ছো মনে হয় আমাদের। সব বল না হয় তোমার অবস্থা খুব খারাপ হবে।
রাবেয়া বলেঃ এখন চুপ কেন? রাতের পর রাত আমার মেয়ে কে নিয়ে নষ্ট খেলাই মেতে উঠচস।ফস্টিনস্টি করচস।আমার নির্দোষ মেয়ে টা কিছুই জানতো না । আর এখন স্বীকার করতে বলছি,মুখে তালা দি রাকছস কেন?
লাবু বলেঃ শান্ত হন ভাবি। আপনি এমন করলে নিজেভ অসুস্থ হয়ে যাবেন।
হাবিব বলেঃ আর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করবো।না বললে তোমার উপর আমরা যে কোন সময় যে কোন action নিতে বাধ্য হব।
রাহাত হুজুর বলেঃ আমার রাগ উঠলে তোমাকে শেষ করে ফেলবো কিন্তু প্রিন্স ?তুমি জানো এটা করা আমার জন্য বড় ব্যাপার নই। যা বলার তাড়াতাড়ি বলো!!!
প্রিন্স তখন ও চুপ ছিল। তখনই হঠাৎ
জান্নাত বলেঃ শাম্মি তুমি বরং যেখানে যাবে বলছিলে চলেই যাও।তোমার ভাইয়ের মুখে তালা দিয়ে আছে। আর তোমার ভাই তোমাকে ভালোবাসে না। তাই এখন ও চুপ।চলে যাও।যত তাড়াতাড়ি পারো!!!!
শাম্মি বলেঃ এখনই চলে যাচ্ছি।ভাই তুই আমাকে জীবনে ও আর খুঁজে পাবি না
প্রিন্সের চোখ জোড়া অশ্রুতে টলমল করছে। আর চোখ জোড়া আগুনের গুলাগ এর মতো লাল হয়ে আছে ।ওদের প্রতি তিব্র রাগের বহিঃপ্রকাশ তার চোখ জোড়া দেখলেই বুঝা যাচ্ছে।
কথায় আছে, ভাইয়েরা হচ্ছে আল্লাহ পাক এর এক বড় নিয়ামত। বোনের সুখের জন্য, বোনের মুখে হাসি ফুটাতে তারা সব করতে পারে। সে কাজ যত কঠিন হোক না কেন। ভাইয়েরা সে কাজ অনায়াসে বোনের জন্য করে পেলে।
বিনিময়ে তাদের বোনের মুখে এক টুকরো হাসি। ভাইদের সব গ্লানি মোচন করে দেয়।
আসলে প্রিন্স ও বোনকে মারাত্মক ভালবাসে।
আর তাইতো,
শাম্মি যাওয়ার জন্য পা বাড়াতেই প্রিন্স চিৎকার দেয়। আর,
প্রিন্স বলেঃ আমি প্রতিশোধ নিছিলাম!!!!
প্রতিশোধ।।।।।
শাম্মি অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে প্রিন্সের দিকে।
শাম্মি বলেঃ তুই একটা জীন?
আর রিনি একটা মানুষ। আর তুই নরমাল কোন জীন নই।জীন রাজ্যের প্রিন্স। তোর সাথে ওর কিসের শত্রু থামি?
প্রিন্স দির্ঘ নিঃশ্বাস নেই।।
তখন অন্য দিকে রিনি সব শুনছিলো।কে কি বলছে, কি করছে!
তবে সে চুপ ছিল।
কারণ সে ও জানতে চায়। কেন রাতের গভীরে এমন একটা ঘৃণার কাজ প্রিন্স তার সাথে করলো।
আসলে বিয়ে পর স্বামী, স্ত্রির সম্পর্কে ঘনিষ্ঠ হওয়া হালাল।এটা সবার কাছে গ্রহণনীয়।
কিন্তু বিয়ে আগে এরকম ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে জড়িয়ে যাওয়া সম্পূর্ণ হারাম।সকলের নিকট দৃষ্টি কোটো। আর সবাই ঘৃণার চোখে দেখে।
ঠিক তাই রিনির কাছে ও এটা একটা ঘৃণিত কাজ হিসেবে গণ্য হচ্ছে।
তখনই প্রিন্স চোখ জোড়া বন্ধ করে আর বলতে শুরু করে ঃআমি আর আমার বোন খুব ঘুরে বেড়াতাম। ২ জনে ভ্রমণ পিপাসু।আর আমাদের যখন যেখানে ইচ্ছা চোখের পলক ফেলতেই চলে যেতে পারি।সব জায়গায় তো জীন থাকে ।
বাবা খুব ভালো রাজা তাই সবাই বাবা কে অনেক সম্মান করে,ভালোবাসে।
আর যেখানে যেতাম সেখানকার জীনেরা আমাদের খেয়াল রাখতেন। আর যেকোনো সমস্যার মধ্যে পড়লে।যেখানে যেতাম সেখানের জীনেরা সামলে
নিতো।তাই মা বাবা ও নিশ্চিন্তে আমাদের ভাই, বোনকে ঘুরতে দিতো।কোন বাঁধা দিতো না।
কিন্তু একদিন বোন বলে।কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ঘুরবে।
তাই
একদিন আমি, আর বোন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে আসি। ২ জনে নির্ঝন
জায়গায় বসে ছিলাম।
কিন্তু একটু পর শাম্মি আমাদের বাসায় মানে আমাদের রাজ্যে ফিরে যাবে বলে।তার নাকি কি কাজ বাকি আছে।
আমাকে ও চলে যেতে বলে।কিন্তু আমি প্রকৃতির সুন্দর এই রুপকে আরোও উপভোগ করতে চাইছিলাম।
তাই বলি,তুই যা।আমি কিছুক্ষণ থাকি এখানে?
শাম্মি বলেঃ বুঝেছি তুই এই রোমাঞ্চকর সময় টা আরো উপভোগ করতে চাচ্ছিস?
প্রিন্স বলেঃ কেমনে বুঝস মনের কথা?
শাম্মি বলেঃ কিস কা বেহেন দেখনা পাড়ে গা!
এই বলে শাম্মি আমাকে রেখে চলে গেল।অল্প সময়ে নিমিষেই হাওয়ার সাথে মিলিয়ে গেলো।
আমি বসে ছিলাম একা। ঠান্ডা হাওয়া, নির্জন একটা জায়গা। সমুদ্রের ঢেউয়ের গর্জন।
এক কথায় অসাধারণ একটা মূহুর্ত।আর অসাধারণ পরিবেশ।
কিন্তু ঠিক কিছুক্ষণ পরে আমি যেনো একটা কিসের শোরগোল এর শব্দ শুনতে পেলাম।এই শোরগোল কোথায় হচ্ছে তা দেখার জন্য
সমুদ্রের ধারে যে গাছ আছে। সে গাছের সারিতে খুজতে লাগলাম।
আর ঠিক তখনই একটা মিষ্টি গানের গলা শুনতে পেলাম।আমার মন সেই সুরে মাতাল হয়ে যাই ।
আরও দ্রুত খুঁজতে থাকি।
সেই কন্ঠ কে সে কন্ঠ রিতিমতো আমার হৃদয় কে ঘায়েল করে দিলো!
খুঁজতে খুঁজতে সমুদ্রের গাছের সারির একটু গভীরে গেলাম। তখন একটা গান গাইছিল সে ঘায়েল করা কন্ঠ সেটা ছিলোঃ
অনেক সাধনার পরে,
আমি পেলাম তোমার মন।
তুমি বুকে টেনে নাও না প্রিয় আমাকে,
আমি ভালোবাসি ভালোবাসি, ভালোবাসি তোমাকে।।।।
গানটা শুনছিলাম আর অবিরত খুঁজেতে থাকি।
ঠিক সেই মূহুর্তে দেখলাম,একটা মেয়ে কে বেশ কয়েক জন ছেলে মেয়ে চারপাশে ঘিরে বসে আছে। আর তাদের মধ্যে বসা।সে-ই মেয়ে টি গান গাইছে।
আমি মেয়ে টাকে ভালোভাবে দেখতে পারছিলাম না।
আমি তো অদৃশ্য আমি ওদের দেখতে পেলে ও ওরা কেউ আমার ইচ্ছে ছাড়া আমাকে দেখতে পাবে না।
তাই আমি আরেক টু কাছে গেলাম। যাতে আমার হৃদয় ঘায়েল করা কন্ঠের অধিকারিনীকে এক ঝলক দেখতে পারি।
ঠিক তখনই আমি দেখলাম,,,,,,,,,,
#পর্ব ঃ ৬ এ তেমন ভালো রেসপন্স করেননি আপনারা। যেমনটা রেসপন্স ১-৫ অবধি পর্বে দেখিয়েছেন।তাই একটু খারাপ লাগলো😢😢😢#
++গল্প মনে হয় আর আপনাদের ভালো লাগছে না?😔😔 ভালো না লাগলে জানিয়ে দিবেন আমাকে। এই পর্বে রেসপন্স না করলে মনে করবো আপনারা আর গল্প টা পড়তে চাইচ্ছেন না???!!!!!++
***আর মন্তব্য করে জানাবেন কেমন হচ্ছে?আপনাদের সবার মন্তব্য আমার জন্য অনেক মূল্যবান।। আপনার একটা মূল্যবান মন্তব্য আমার লেখার আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়!!!****
[আর আপনারা একদিনে আমার পেইজকে যেভাবে সাপোর্ট দিয়েছেন অনেক ধন্যবাদ। আর আপনারা আমার গল্পে টাইমলাইনে যেভাবে রেসপন্স করেন।সেভাবে পেইজে ও রেসপন্স করলে খুশি হবো।আর সম্ভব হলে, গল্প গুলো শেয়ার করবেন।।। ]
[আর আমার সব গল্প আমার page এ দেয়া হবে।লিংক দিলাম,
আমার গল্প ভালো লাগলে page এ like দিয়ে পাশে থাকবেন।
আর আবার বলছি Instagram এ ও পোস্ট করছি গল্প টা ওই খানে ও পড়তে পারবেন। instagram account : jannatul_mawa_moho]
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ ,
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!