রাত যখন গভীর Season:02 Part :32

#রাত যখন গভীর 

#জান্নাতুল মাওয়া মহুয়া 

#(jannatul mawa moho)

Season:02

Part :32

************
রাত যখন গভীর Season:02 Part :32
রাত যখন গভীর Season:02 Part :32


আরেকটা, মহিলা পুলিশ অফিসার এসে বলেঃ কি হচ্ছে টা কি?
আপনাদের,
দুজনের ঝগড়া তে পুলিশরা সবাই ও বিরক্ত। কখন যে আপনারা বিদায় হবেন।উফ।
তখনই, সবাই প্রবেশ করে পুলিশ স্টেশনে।
কামাল বলেঃ এই তো একটু পরে এই দুজন টম এন্ড জেরি কে নিয়ে যাবো হি হি।
রাবেয়া বলেঃ আরে,তোমার তো যেখানে সেখানে জোক্স দিতে হয়। অন্তত পক্ষে এখানে জোক্স না বললে ও পারতে।
সুমি বলেঃ আবার, তোমরা শুরু হয়ে যে ও না কিন্তু। রহমান,আপনি কিছু করেন?
আমার বেস্টি টা আর কতক্ষণ থাকবে জেলের মধ্যে??? বেচারি জান্নাত।
রহমান বলেঃ শান্ত হও। আমি একটা উকিল কে বলেছি।অবশ্য, কামাল সাহেব এর ও পরিচিত। উকিল একটু পর পৌঁছাবে।একটু অপেক্ষা করো।
কামাল বলেঃ কিরে?
পেত্নী জান্নাত?
কেমন লাগছে জেলে?
তোর হবু বর জানে তো?
নাকি আমি কল করবো?
জান্নাত অস্পষ্ট স্বরে বলেঃ তার জন্য তো এতো সব হলো।হুহ।
জান্নাত বলেঃ বাদ দে কামাল ওর কথা। আমাকে জাস্ট বের কর এখান থেকে।
রাবেয়া বলেঃ মুগ্ধ ভাইয়া, আপনি ঠিক আছেন তো?
মুগ্ধ অস্পষ্ট স্বরে বলেঃ যে খবর আপনার ননদীনি জান্নাত শুনালো।আমি যেটা
শুনলাম সেটা শুনে ভিতর টা ক্ষত বিক্ষত হয়ে গেছে। আজকের মতো কখনো এতটা খারাপ লাগে নি।ইয়া আল্লাহ পথ দেখান।
মুগ্ধ বলেঃআরে,ভাবি আমি একদম ঠিক আছি।যত দ্রুত বের হতে পারবো ততটা ভালো হবে।
সবাই অপেক্ষা করছে, উকিল এর জন্য। উকিল এসেছে। একটা পেপার দেখালো।সাথে সাথে দুজন কে মুক্ত করে দিলো।
সবাই চলে আসছিলো। তখনই, অফিসার মহিলা বলেঃ জান্নাত তোমার পাশে মুগ্ধ কে বেশ লাগে। দুজন দুজনার জন্য পারফেক্ট। এভাবে চলতে থাকুক আজীবন তোমাদের পথ চলা।ডা,মুগ্ধ বউয়ের যত্ন নিবেন কিন্তু।
জান্নাত লজ্জা পেল। কারণ, অফিসার তো সত্যি টা জানে না।
মুগ্ধ বলেঃ জি,ইনশাআল্লাহ।
সবাই গাড়ি তে উঠে পড়ে।
কামাল বলেঃ কই যাবা সবাই?
রাবেয়া বলেঃ চলো একটু ঘুরতে যাই।তাছাড়া, রহমান তো আমাদের মেহমান। সো হালকা ঘোরাঘুরি তো চলে।
কামাল বলেঃ আমার মামুনির কি হবে?
সে কি একা বাসায় আসতে পারবে?
সুমি বলেঃ চিন্তা করিস না।ইনশাআল্লাহ মেয়ে বড় হয়েছে ঠিক সামলে নিবে।
এখন তো তোর পিচ্চি মেয়ে আর পিচ্চি নেই।এখন সে ভার্সিটি তে পড়ছে।
সবাই কামাল এর হাতে ছেড়ে দে। সবাই কামাল কে বলে, যে কোন জায়গায় নিয়ে যেতে।কামাল এর পছন্দ মতো। কামাল আপন মনে এগিয়ে যাচ্ছে।
সাথে এগিয়ে যাচ্ছে সবাই । একটা সুন্দর সময় কাটানোর জন্য।।
💮
মিসেস রেহেনা অনেকটা সময় ধরে জান্নাত কে কল দিচ্ছে পাচ্ছে না।জান্নাত এর বাবা কে ও জানিয়ে দিয়েছে। কিন্তু কেউ কোন খবর পাচ্ছে না।
মিসেস রেহেনার প্রেশার বেড়ে যাচ্ছে। কারণ, জান্নাত এর খবর না পেলে তার প্রেশার বেড়ে যায়।
মিসেস রেহেনা আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে যাচ্ছে, প্রেশার এর ফলে ।রেহেনা কে অবাক করে দিয়ে। জান্নাত কল করেছে তখনই,
কল রিসিভ করে,
রেহেনা বলেঃ কিরে হতচ্ছাড়ি কই আছিস?আমার
প্রেশার বেড়ে যাচ্ছে। তাও তোর কোন খবর পাচ্ছিলাম না।
কই আছিস?
রিসিভ করিস নি কেন কল?
জান্নাত বলেঃ মা আমি ঠিক আছি। চিন্তা করিও না।তেঁতুল এর শরবত খাও ঠিক হয়ে যাবে।
ওষুধ টা ও খেয়ে নাও মা।আমি আর পিচ্চি নাই তো।এতো চিন্তা করলে কি চলে!
জান্নাত আবার বলেঃ ওহ হ্যাহ্যা মা।আমি রাবেয়া ও কামাল এর বাসায় থাকবো।কয়েক দিন।
থাকবো তো?
মিসেস রেহেনা চিন্তা করছে কি করা যায়। মিসেস রেহেনা লক্ষ্য করছে, জান্নাত বেশ কিছু দিন ধরে চুপচাপ হয়ে গেছে।সবসময় মন মরা হয়ে থাকে। তাই তিনি মেয়ের মন ঠিক করতে ওকে করে দেয়।
জান্নাত ও খুশী হয়ে গেছে। মোবাইল রেখে দিয়ে একটা চিৎকার করে দেয়।
মিসেস রেহেনা তার দুহাত তুলে বলে, ইয়া মাবুদ, ইয়া আল্লাহ পাক, আমার মেয়ে কে সুস্থ রাখো।আগের মতো করে দাও।সাথে, তার
কাজের প্রতি আরোও উন্নতি করে দাও।ওর মনে প্রশান্তি দাও।আর যেনো একটা ভালো সঙ্গী পাই।আমিন।
💮
💮
শাম্মি বলেঃ হাবিব এবার যে তোমার চোখ জোড়া বন্ধ করতে হবে?
হাবিব বলেঃ বাহ রে কেনো?
বন্ধ করতে হবে?
বলো?
শাম্মি বলেঃ চুপ একদম যা বললাম আপনাকে তাই করেন!
এদিকে আসেন।
এই বলে,শাম্মি তার দু'হাতে হাবিবের চোখ জোড়া বন্ধ করে দেয়। হাবিব চোখ বন্ধ করে হাঁটছে।আর পথ বলে দিচ্ছে, শাম্মি।
শাম্মি বলেঃ হাবিব চোখ জোড়া খুলে দেখো।
হাবিব চোখ জোড়া খুলে দেখে, সামনে একটা জাহাজ। খুব সুন্দর করে সাজানো হয়েছে জাহাজ টাকে।
শাম্মি বলেঃ চলেন।যাই।
দুজন জাহাজে উঠে পড়ে।
শাম্মি বলেঃ আপনার জন্য কিছু কাপড় রাখা আছে পড়ে নেন।আমিও রেডি হয়ে আসি।বাম পাশে আপনার কেবিন। ওকে?
হাবিব বলেঃ আচ্ছা।।। ওকে
দুজন দু'দিকে কেবিনে চলে গেল। শাম্মি কাপড় টা পড়ে নেই।রেডি হয়ে বেরিয়ে আসে।
অন্য দিকে, হাবিব ও রেডি।
শাম্মি দেখে, হাবিব একটা সাদা শার্ট এবং পেন্ট পড়েছে। সাদা ড্রেসে হাবিব কে অসম্ভব ভালো দেখাচ্ছে।
হাবিব ডেবডেব করে তাকিয়ে আছে শাম্মির দিকে। হাবিব দেখে, শাম্মি চুল গুলো খোলা রেখেছে। গোলাপি রঙের একটা টপস এবং হালকা গোলাপি রঙের লেহেঙ্গার মতো রাউন্ড দেয়া আছে ড্রেসে।গলায় একটা নেকলেস। হাবিব বলেঃ হাই,মার ঢালা।
শাম্মি লজ্জা পেল। হাবিব এক পা দু পা করে এগিয়ে আসছে শাম্মির দিকে। হঠাৎ করে, শাম্মির কোমর টা জাপ্টে ধরে ফেলে।
হাবিব বলেঃ কিছু মনে করো না।প্লিজ শাম্মি।
আমি নিজেকে আর সংযত করতে পারি নি।কি যেনো অদৃশ্য একটা টান অনুভব করছি।যার ফলে এভাবে জাপ্টে ধরেছি।
তখনই শাম্মি বলেঃ হাবিব.........
💮
💮
=>মামা!!!!!
ঐশী বলেঃ আবে রিনি আরেক টু জোরে ডাক দে।দেখছিস না কতো মানুষ আছে।
রিনি বলেঃ মা.....মামা।
দু প্লেট ফুচকা দেন।একদম ঝাল করে।
এবার কাজ হলো এটেন্সন পেলো।ফুচকা ওয়াকা দু প্লেট দিলো।দু জন ই টপাটপ মুখে দিয়ে দেয়। ১ মিনিটে শেষ করে ফেলে।
এবার,ঐশী বলেঃ মামা,আরও দু প্লেট। তবে,আরও ঝাল হতে হবে। আগের গুলো ঝাল কম ছিলো।
একটু পর, আবার দু প্লেট দিয়ে দিলো।আস্তে আস্তে মানুষ কমে যায়।
রিনি বলেঃ মামা ঝাল আরও বাড়িয়ে দেন।
ঐশী বলেঃ আমাকে ও।
ফুচকাওয়ালা অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে তাদের দিকে। কারণ, অলরেডি লাল মরিচের গুঁড়োর জন্য ফুচকা লাল হয়ে গেছে। কিন্তু, এরা আরও ঝাল খুঁজছে।
ফুচকাওয়ালা কোন উপায় না পেয়ে, কাঁচা মরিচ গুঁড়ো গুঁড়ো করে দেয়।
দুজন এবার তৃপ্তি পাচ্ছে। দুজনের চোখে অশ্রু টলটল করছে। তবুও কেউ পানি চাইছে না।
দু'জন ই আবার ফুচকা অর্ডার করে। এবাবে করে, একজন ৫ প্লেট করে খেয়ে নিলো।রিনি টাকা টা পে করে দেয়। দুজনের মুখ লাল হয়ে যাই। চোখ জোড়া অশ্রুতে চকচক করছে।
গাড়ির কাছাকাছি গিয়ে, ড্রাইভার চাচা কে পেল রিনি।
রিনি বলেঃ চাচা আপনি আমার চাচা না!
একটা আবদার করি?
ড্রাইভার চাচা বলেঃকি আবদার বলো,?
তাছাড়া
মামুনি,তোমরা কি ঠিক আছো?
তোমাদেরকে এমন লাগছে কেন দেখতে?
রিনি বলেঃ আমি এবং ঐশী আমরা ঠিক আছি।
রিনি আবার কিছু একটা বলতে যাচ্ছি লো।
তখনই, ড্রাইভার চাচার মোবাইলে কল আসে।
কথা শেষ করে। কান্না করছে ড্রাইভার চাচা।
রিনি বলেঃ কি হয়েছে?
ড্রাইভার চাচা বলেঃ আমার মেয়ে এক্সিডেন্ট করেছে। আমার বউ জরুরি ডেকেছে। কিন্তু তোমাদের একা কেমনে রেখে যাবো?
রিনি বলেঃ আপনি কোন চিন্তা না করে যান
আমি ড্রাইভ করবো।তাছাড়া, ঐশী ও ড্রাইভ জানে।
ড্রাইভার চাচাকে আস্বস্ত করেছে রিনি।কোন সমস্যা হবে না বলেছে।ড্রাইভার চাচা যেতে চাচ্ছিলো না।জোর করে পাঠিয়ে দেয় রিনি।
রিনি এতক্ষণ লক্ষ্য করে নি।তার বান্ধুবী ঐশী তার পাশে নেই।রিনি ঐশী কে খুজতে লাগলো। কিন্তু পাচ্ছে না।
রিনি পুরো ক্যাম্পাসে খুঁজে যাচ্ছে।কিন্তু কোন হদিস পাচ্ছে না। হটাৎ করে, রিনির চোখ জোড়া পড়ে একটা ঘরে। সে ঘরে আছে, মাহমুদ।
রিনি দেখে, মাহমুদ স্যার এক নজরে তাকিয়ে আছে একটা মেয়ের দিকে। আর মেয়ে টা তৃপ্তি করে ফুচকা খাচ্ছে।
রিনির কেনো জানি সহ্য হচ্ছে না এমন দৃশ্য টা।রিনি চোখ সরিয়ে নেই। কারণ, তার বেস্টি কে খুঁজে বের করতে হবে। তাছাড়া, এসব দেখে রিনির বড্ড কষ্ট হয়।
রিনি সবখানে খুঁজে দেখেছে।তবে ছাদে দেখেনি।তাই,রিনি
ছাদের দিকে এগিয়ে গেছে। তখনই, রিনি একটা ছেলের কন্ঠ শুনতে পেল।
রিনি আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছে কন্ঠ টার দিকে।
রিনি ছাদে উঠেছে।আন,
রিনি দেখতে পেল... ,........
চলবে.....
গল্প কেমন হচ্ছে কমেন্ট করে জানাবেন???😍
(বানান ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন)
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ ,
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!