গোলাপী রঙের পরী (দুষ্টু মিষ্টি ভালোবাসার গল্প) - ShohorToly

গোলাপী রঙের পরী (দুষ্টু মিষ্টি ভালোবাসার গল্প) - ShohorToly

গোলাপী রঙের পরী (দুষ্টু মিষ্টি ভালোবাসার গল্প) - ShohorToly
গোলাপী রঙের পরী (দুষ্টু মিষ্টি ভালোবাসার গল্প) - ShohorToly


 -- এই মামা যাবেন?
 -- কই যাইবেন?
 -- প্যারিস রোড।
 -- চলেন... .
ঘড়িটা পড়তে পড়তেই রিক্সায় উঠলাম। রওনা দিলাম প্যারিস রোডের উদ্দেশ্যে। . চুপ থেকে কি লাভ যেতে যেতে আমার পরিচয়টা দিয়েই নেয়। কি বলেন ? আমি ধ্রুব। ঈশ্বরদীতে থাকি। আর আমি প্যারিস রোডে কেন যাচ্ছি নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছে করছে। আসলে নিমকির সাথে আজকে আমার প্রথম দেখা হবে। আর ও ওখানেই আসবে বলেছে। ও আপনাদের তো নিমকির কথা বলায় হয়নি। আসলে নিমকি হচ্ছে আমার একমাত্র গার্লফ্রেন্ড। আমি ওকে নিজের থেকেও বেশি ভালোবাসি। আমাদের পরিচয়টা আসলে একটু অন্যভাবে। . আমি আর আমার ফ্রেন্ডরা মিলে একদিন ঘুরতে বের হয়েছিলাম। হঠাৎ করেই ওখানে একটা মেয়েকে আমার খুব ভালো লাগে। আমার ফ্রেন্ড কে বললাম। ও বললো ওই মেয়ে নাকি তার চেনা। সৌভাগ্য বশত ওর কাছে মেয়েটার ফেসবুক আইডি ছিল। ব্যাস মিটে গেল। আমাকে আর পায় কে। বাসায় এসেই মেয়েটার আইডি খুঁজে বের করলাম। কিন্তু দেখি মেয়েটার আইডি তে শুধুমাত্র রিকোয়েস্ট পাঠানো ছাড়া কোন অপশন ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে অপেক্ষা করতে হলো। হঠাৎ একদিন সন্ধ্যা বেলা দেখি ওই আইডি থেকে মেসেজ....
. -- হাই।
 -- কেমন আছেন?
 -- ভালো। আপনি? -- ভালো ।
 -- আপনি কি আমাকে চিনেন?
 -- চিনি মানে...
আপনাকে এক জায়গায় ঘুরতে গিয়ে দেখছিলাম। . এভাবেই কথা হয় তার সাথে। আমি ভাবতেই পারছিলাম না যে সে আমাকে মেসেজ করবে। আমি মেসেজ পেয়েই আগে তার আইডি তে গেলাম দেখি এক্সেপ্টও করছে। আমার যে কি ভালো লাগছিল। এভাবেই অল্প অল্প কথা বলতে বলতে কেটে যায় কিছুদিন। জানতে পারি ও রাজাপুর স্কুলে পড়ে। আমি অনেক কিছু জানতে চেষ্টা করি। তার ভালো লাগা মন্দ লাগা বিষয় গুলো। আস্তে আস্তে তার সাথে ভালো বন্ধুত্ব তৈরি
হয়ে যায়। এর মাঝে একদিন ওর ফোন নাম্বারটা দিয়ে দিলো। তারপর থেকে ফোনেই বেশি কথা হতো। একদিন.... .
 -- হ্যালো।
 -- হ্যাঁ বলো।
 -- কি করছো?
 -- এই তো ছাদে বসে আছি। তুমি?
 -- আমি তো রুমে।
 -- একটা গান শোনাবা?
 -- এখন... -- হুমম এখন।
 -- আচ্ছা। .
 এভাবে সবসময় আমার ছোট ছোট আবদার গুলো নিমকি মেনে নিতে লাগলো। আমি বুঝতে পারলাম ও আস্তে আস্তে আমার প্রতি দুর্বল হয়ে পড়ছে। এইবার ওকে বলে দিতে হবে আমার মনের কথা। কিছুদিন পার হয়ে গেল। ডিসিশন নিলাম আজকে নিমকি কে বলে দিবো আমার মনের কথা। যেই ভাবা সেই কাজ। ফোন দিলাম... .
 -- হ্যালো।
 -- হ্যালো। নিমকি?
 -- হুমম। বলো...
 -- আমি তোমাকে কিছু বলতে চাই।
 -- হুমম বলো শুনছি তো।
 -- আমি তোমাকে ভালোবাসি।
 -- সেতো আমি আগে থেকেই জানি।
 -- মানে?
 -- মানে আমি তো অপেক্ষা করছিলাম তোমার মুখ থেকে শোনার জন্য।
 -- তার মানে তুমিও আমাকে ভালোবাসো?
 -- হুমম। .
 বলেই ফোন কেটে দিল। জীবনের সবথেকে বেশি খুশি মনে হয় সেদিন হয়েছিলাম। কাউকে ভালোবেসে হারানোর কষ্টটা যেমন বেশি হয় তেমনি ভালোবেসে কাউকে পাওয়ার আনন্দ টাও অনেক বেশি হয়। সেদিন থেকেই শুরু হলো আমাদের ভালোবাসার সম্পর্ক। আমরা দুজনই চেষ্টা করতাম আমাদের সম্পর্কটা যেন সবসময় মধুর থাকে। . প্রায় দুই মাস হয়ে গেছে আমাদের সম্পর্কের। সম্পর্কের পর আজ প্রথম দেখা করতে যাচ্ছি। তাই একটু বেশিই উত্তেজিত। . প্রায় আধা ঘন্টা পর এসে রিক্সা থামলো। রিক্সা থেকে নেমে ভাড়া দিয়ে দিলাম। আশে পাশে তাকিয়ে দেখি অনেক খানি দূরে একটা মেয়ে গোলাপী রঙের শাড়ি পরে রাস্তার ধারে বসে আছে। বুঝলাম ওইটাই নিমকি। কারন আমার নীল রঙ প্রিয় হওয়া সত্ত্বেও আমি ওকে আজ গোলাপী রঙের শাড়ি পড়তে বলেছিলাম। . আমি কিছু না বলে ওর পাশে গিয়ে বসলাম। বসে ওর দিকে তাকিয়েই আছি। চোখ ফেরাতে পারছি না। আসলে আমি অনেক পরীর নাম শুনছি যেমন লাল পরী, নীল পরী ইত্যাদি। কিন্তু আজ আমি গোলাপী পরী দেখছি। কি সুন্দর করে সেজেছে। গোলাপী শাড়ি সাথে সাদা ব্লাউজ, হাতে গোলাপী কাঁচের চুড়ি, চোখে কাজল, মুখে হালকা মেকআপ আর ঠোঁটে হালকা গোলাপী লিপস্টিক। যেন একেবারে গোলাপী রঙের পরী।
. -- কি দেখছো এভাবে?
 -- তোমাকে...
 -- আমাকে আবার নতুন করে দেখার কি হলো?
 -- গোলাপী রঙ...
 -- মানে?
 -- না মানে তোমাকে আজ গোলাপী রঙের পরীর মতো লাগছে।
 -- সত্যি?
 -- হুমম তিন সত্যি।
 -- ধ্যাত।গোলাপী রঙের পরী হয় নাকি?
 -- আজ থেকে হয়।
 -- মানে?
 -- মানে আমার বউটায় শুধু গোলাপী রঙের পরী।
 -- ও তাই বুঝি। তা বিয়া করলা কবে শুনি?
 -- এই যে এখন।
 -- তাই না...
 -- হুমম.... .
বলতে বলতেই ওর কোলে মাথা দিয়ে শুয়ে পরলাম। .
 -- এই এই করছো? সবাই দেখছে তো...
 -- তো কি হইছে। দেখলে দেখুক। আমি তো আমার বউয়ের কোলে মাথা রেখে শুয়ে শুয়ে আকাশের তারা গুনছি।
 -- দিনের বেলায় তারা কই পাইলা?
 -- ও তাইতো। তাহলে এভাবেই শুয়ে থাকি রাত হলে তারা গুনে বাসায় যাবো।
 -- তুমি সত্যিই একটা পাগল।
 -- হুমম তোমার জন্য।
 -- এভাবেই সারাজীবন ভালোবাসবে তো?
 -- না।
 -- মানে?
 -- এর থেকেও বেশি ভালোবাসবো পাগলী।
পোস্ট রেটিং করুন
ট্যাগঃ
About Author

টিউটোরিয়ালটি কেমন লেগেছে মন্তব্য করুন!